বিকাল ০৪:৪২, বৃহস্পতিবার, ২৬ মে, ২০২২, ১২ জ্যৈষ্ঠ

মেগা প্রকল্পের বড় অগ্রগতি :

এ বছরই চালু হবে পদ্মা সেতু, মেট্রোরেল ও কর্ণফুলী টানেল

একসময় বাংলাদেশের মেগা প্রজেক্টগুলোর কাজ এমনভাবে এগিয়ে যাচ্ছিলো যে, মনে হচ্ছিল ২০২১ সালের মধ্যেই বেশ কয়েকটি মেগা প্রজেক্টের কাজ শেষ হয়ে যাবে। কিন্তু করোনা মহামারির সময় এসব প্রকল্পে কিছুটা ধীরগতি নেমে আসে। তবে বর্তমানে এইসব প্রকল্পের কাজ পূর্ণ গতিতে এগিয়ে চলেছে। 


বহুল কাঙ্খিত পদ্মাসেতুর কাজ প্রায় শেষের দিকে। পাশাপাশি আরেকটি মেগা প্রকল্প, ‘মেট্রোরেল’ ইতিমধ্যে উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত পরীক্ষামূলকভাবে চলাচল সম্পন্ন করেছে। এ বছর ডিসেম্বর নাগাদ জনগণের জন্য এই অংশ উন্মুক্ত করে দেয়া হবে।

এ বছর অক্টোবরের মধ্যে খুলে দেয়া হবে কর্ণফুলি নদীর তলদেশে নির্মিত বঙ্গবন্ধু টানেল। যদিও এটি কোন মেগা প্রকল্পের অন্তর্ভূক্ত নয়। এছাড়াও রুপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র, মাতারবাড়ি কয়লা বিদ্যুৎ এবং পায়রা গভীর সমুদ্রবন্দর ভৌত অবকাঠামো ইতিমধ্যে দৃশ্যমান হয়েছে।

পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান জানিয়েছেন, ‘করোনার ভয় কাটিয়ে ইতিমধ্যে এসব প্রকল্পের কাজ গ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে। সরকারের সর্বোচ্চ মহল থেকে এগুলোর তদারকি করা হচ্ছে। আমরা আশা করছি নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই এসব প্রকল্পের কাজ শেষ করতে পারবো।’

তিনি আরো বলেন, ‘এ বছরেই অন্তত তিনটি মেগা প্রকল্পের উদ্বোধন হতে যাচ্ছে, যা জাতীয় অর্থনীতিতে বিশাল ভূমিকা রাখবে। জিডিপিতে এটি ঠিক কতটা অবদান রাখবে সেটি কাঁটায় কাঁটায় নির্ধারণ করা কঠিন। তবে, নিশ্চিতভাবেই অর্থনীতির গতি বৃদ্ধি করবে এবং পরোক্ষভাবে জনগণও উপকৃত হবে।’

পদ্মা বহুমুখী সেতু : 
সরকারের সর্বোচ্চ অগ্রাধিকারে রয়েছে পদ্মা সেতু প্রকল্প। এ পর্যন্ত এ প্রকল্পের সামগ্রিক অগ্রগতি হয়েছে ৮৯.৫০ শতাংশ। এ প্রকল্পের জন্য নির্ধারিত ৩০১ বিলিয়ন ডলারের মধ্যে ২৬৬.৫৮ বিলিয়ন ডলার ইতিমধ্যে ব্যয় হয়েছে। এছাড়া সেতুর  দুই প্রান্তে ডাবল ডেক সড়ক ও রেলপথ নির্মাণের কাজ শেষ হয়েছে। সড়কপথে কার্পেটিং এবং প্যারাপেট প্রাচীর নির্মাণের কাজ শেষ পর্যায়ে। বর্তমানে ইউটিলিটি সার্ভিসের ইনস্টলেশন চলছে।

মেট্রোরেল : 
ঢাকার উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত  ২০ কিলোমিটার মেট্রোরেল এ বছর ডিসেম্বর নাগাদ সাধারণ যাত্রীদের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়ার লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার। এখন পর্যন্ত এই প্রকল্পের সামগ্রিক  অগ্রগতি হয়েছে ৭২ শতাংশ এবং উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত এ কাজের (স্টেশনসহ) অগ্রগতি হয়েছে ৯০ শতাংশ। প্রকল্পের জন্য নির্ধারিত ২২০ বিলিয়ন ডলারের মধ্যে  ১৬৯.৬৯ বিলিয়ন ডলার ব্যয় হয়েছে।

পদ্মা রেল সংযোগ : 
ঢাকা থেকে যশোর পর্যন্ত ১৭২ কিলোমিটার রেললাইন প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে সরকার। এর ফলে রাজধানী থেকে পদ্মা সেতুর মাধ্যমে পশ্চিমাঞ্চলীয় ২৩ টি জেলার মধ্যে সরাসরি সংযোগ স্থাপন হচ্ছে। এ প্রকল্পের জন্য নির্ধারিত ৩২৯.৪০ মিলিয়ন ডলারের মধ্যে ২০৩.৩৯ মিলিয়ন ডলার ব্যয় হয়েছে। ২০২৪ সালের জুন মাস নাগাদ প্রকল্পের কাজ শেষ হবে।

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র :
সরকারের সবচেয়ে ব্যয়বহুল প্রকল্পের একটি হচ্ছে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র। প্রায় ১০১২ বিলিয়ন ডলার ব্যয়ে এটি নির্মাণ করা হচ্ছে। রুপপুরের দুইটি ইউনিট থেকে ২ হাজার ৪শ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন সম্ভব হবে। তবে এর প্রথম ইউনিটটি চালু হবে ২০২৩ সালে এবং দ্বিতীয় ইউনিটটি চালু হবে ২০২৪ সালে।

এখন পর্যন্ত এ প্রকল্পের মোট ব্যয় হয়েছে ৩৬৯.৪৭ বিলিয়ন ডলার এবং কাজের সার্বিক অগ্রগতি হয়েছে ৪৩.১২ শতাংশ। ২০২৫ সালের মধ্যে পুরো প্রকল্পের কাজ শেষ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

দোহাজারী-রামু-ঘুনধুম রেললাইন : 
চট্টগ্রামের দোহাজারী থেকে মিয়ানমার সীমান্ত পর্যন্ত মোট ১৮৮ কিলোমিটার রেললাইন নির্মাণ করা হচ্ছে। এই প্রকল্পের আওতায় ১৮০ বিলিয়ন টাকার বেশি ব্যয়ে আঞ্চলিক যোগাযোগ ও তাকে ঘিরে পর্যটন শিল্প বিকাশের পরিকল্পনা রয়েছে। এখন পর্যন্ত ৬২.২৯ বিলিয়ন ডলার ব্যয়ে ৬৬ শতাংশ কাজের  অগ্রগতি হয়েছে।

পায়রা গভীর সমুদ্রবন্দর : 
পায়রা গভীর সমুদ্রবন্দরের প্রাথমিক পর্যায়ের কাজ সম্পন্ন হওয়ার পর ইতিমধ্যে একটি অংশে পণ্য আনা নেয়ার কাজ শুরু হয়েছে। ৪৩ দশমিক ৭৪ বিলিয়ন ডলারের এই প্রকল্পে ইতিমধ্যে ৩০ দশমিক ৮৪ বিলিয়ন ডলার ব্যয় হয়েছে। প্রকল্পের অগ্রগতি হয়েছে ৮৩ শতাংশ।  বন্দরটি পুরোপুরি চালু হলে এর কর্মক্ষমতা আরো বৃদ্ধি পাবে। 
এছাড়া ২০২৩ সালের মধ্যে চট্টগ্রাম বন্দরের ওপর চাপ কমাতে পটুয়াখালির রাবনাবাদে ১৬ মিটার ড্রাফ্ট চ্যানেল তৈরি করতে যাচ্ছে সরকার।

মাতারবাড়ী কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র : 
মাতারবাড়ী কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্পটি সরকার পাওয়ার হাব হিসেবে গড়ে তোলার জন্য কাজ করছে। ১৪১৪ একর জমির উপর নির্মিত এই  বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি আগামী বছর ডিসেম্বর নাগাদ চালু হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। গত ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রকল্পের ৫২ দশমিক ২০ শতাংশ সম্পন্ন হয়েছে। ৩৬০ বিলিয়ন ডলারের এই প্রকল্পে ইতিমধ্যে ১৯৭.৯৫ বিলিয়ন ডলার খরচ হয়েছে।

Share This Article


৭২ ঘণ্টার মধ্যে অনিবন্ধিত সব ক্লিনিক বন্ধের নির্দেশ

দেশের যেসব অঞ্চলে ঝড়োবৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে

লিবিয়ার বন্দিশালা থেকে ফিরলেন ১৬০ বাংলাদেশি

দোনবাসে ৪০ শহরে গোলাবর্ষণ করেছে রাশিয়া

১১ লাখ টাকা খরচ করে মানুষ থেকে “কুকুর” হলেন যুবক

আফগানিস্তানে সিরিজ বোমা হামলায় নিহত ১১, আহত ২৫

ঢাবি ক্যাম্পাসে উত্তেজনা, ছাত্রলীগ-ছাত্রদল ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া

খেলোয়াড়কে কুপ্রস্তাব, পিএসজি কোচ বরখাস্ত

বন্ধুদের সঙ্গে নিয়ে প্রেমিকাকে ধর্ষণের অভিযোগ

খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে কাজ করছে সরকার; প্রধানমন্ত্রী

সালমানের সিনেমায় ভিলেন দক্ষিণী তারকা জগপতি বাবু

সেনেগালে হাসপাতালে আগুন, ১১ নবজাতকের মৃত্যু

জামায়াত নিয়ে সতর্ক অবস্থানে ভারত

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর ছেলেকে এক লাখ রুপি জরিমানা

পল্লবীর পর এবার রহস্যজনক মৃত্যু মডেল বিদিশার