সকাল ১১:৩৫, বুধবার, ২৬ জানুয়ারি, ২০২২, ১২ মাঘ

জীবন বদলে দিচ্ছে মুঠোফোন

মোবাইল ব্যাংকি লোগো
মোবাইল ব্যাংকি লোগো

নিজস্ব প্রতিবেদক: ব্যাংকে না গিয়েও যে আর্থিক সেবা মিলবে, এমন আলোচনা ১০ বছর আগেও শুরু হয়নি। নব্বইয়ের দশকে যখন দেশে মোবাইল ফোনের ব্যবহার শুরু হয়, সেই ফোনই যে একসময় অনেক আর্থিক লেনদেনের বড় মাধ্যম হয়ে উঠবে, এমন পূর্বাভাসও তখন কেউ দেয়নি।

আর এক দশক আগে যখন মোবাইলের মাধ্যমে আর্থিক সেবা (এমএফএস) বা মোবাইল ব্যাংকিং শুরু হয়, তখন এই সেবার গ্রহণযোগ্যতা নিয়েও প্রশ্ন ওঠে। তবে এক দশক পর বাস্তবতা হলো মোবাইল ব্যাংকিং সেবা এখন প্রতি মুহূর্তের আর্থিক প্রয়োজনে অপরিহার্য অংশ। হাতের মুঠোফোনটিই এখন নগদ টাকার চাহিদা মেটাচ্ছে। দেশের জনগোষ্ঠীর বড় একটি অংশ এখন এসব সেবার গ্রাহক। 

দেশের ব্যাংকিং লেনদেনে বিপ্লব ঘটিয়েছে মোবাইল ব্যাংকিং। সমাজের সব পর্যায়ে পৌঁছে গেছে এ সেবা। দেশের এমন কোন প্রান্ত নেই, যেখানে এ সেবা নেই। এখন মোবাইল ব্যাংকিং শুধু টাকা পাঠানোর মাধ্যম না। এর ব্যবহার হচ্ছে সব ধরনের ছোট ছোট লেনদেনে। 

বিশেষ করে পরিষেবা বিল পরিশোধ, স্কুলের বেতন, কেনাকাটা, সরকারী ভাতা, টিকেট ক্রয়, বীমার প্রিমিয়াম পরিশোধ, মোবাইল রিচার্জ ও অনুদান প্রদানের অন্যতম মাধ্যম। আর মোবাইল ব্যাংকিংয়ে টাকা জমা করতে এখন আর এজেন্টদের কাছেও যেতে হচ্ছে না। 

ব্যাংক বা কার্ড থেকে সহজেই টাকা আনা যাচ্ছে এসব হিসাবে। আবার এসব হিসাব থেকে ব্যাংকেও টাকা জমা শুরু হয়েছে, ক্রেডিট কার্ড বা সঞ্চয়ী আমানতের কিস্তিও জমা দেয়া যাচ্ছে। এর ফলে একটি মুঠোফোনই যেন একেকজনের কাছে নিজের ব্যাংক হয়ে উঠেছে।

জানা গেছে, বাংলাদেশে মোবাইলের মাধ্যমে আর্থিক সেবার যাত্রা শুরু হয় ২০১১ সালের মার্চে। বেসরকারী খাতের ডাচ্-বাংলা ব্যাংক প্রথম এ সেবা চালু করে। পরে এটির নাম বদলে হয় রকেট। এরপর ব্র্যাক ব্যাংকের সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে এমএফএস সেবা চালু করে বিকাশ। পরবর্তী সময়ে আরও অনেক ব্যাংক এ সেবায় এসেছে। তবে খুব সুবিধা করতে পারেনি। 

বর্তমানে বিকাশ, রকেটের পাশাপাশি মাই ক্যাশ, এম ক্যাশ, উপায়, শিওর ক্যাশসহ ১৩টি ব্যাংক এ সেবা দিচ্ছে। ব্যাংক ছাড়াও মোবাইলে আর্থিক সেবার বড় মাধ্যম হয়ে দাঁড়িয়েছে রাষ্ট্রীয় ডাক বিভাগের সেবা ‘নগদ’। ২০১৯ সালের মার্চে চালু হওয়া প্রতিষ্ঠানটির এ সেবা দুই বছরে বড় বাজার দখল করে নিয়েছে। বর্তমানে তাদের নিবন্ধিত গ্রাহক চার কোটি ৪৫ লাখ। 

নগদে দৈনিক লেনদেন হচ্ছে প্রায় ৬৫০ কোটি টাকা। সর্বশেষ গত সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশ ব্যাংক মোবাইল ব্যাংকিং নিয়ে যে প্রতিবেদন তৈরি করেছে তাতে দেখা যায়, দেশে এ সেবায় নিবন্ধিত গ্রাহক ১০ কোটি ৬৪ লাখ ৭১ হাজারের বেশি।

এর মধ্যে ৩ থেকে ৪ কোটি হিসাবে প্রতি মাসে নিয়মিত লেনদেন হয়। বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমতি পাওয়া ব্যাংকগুলো বর্তমানে ১১ লাখ ৪২ হাজার এজেন্টের মাধ্যমে সারাদেশে মোবাইল ব্যাংকিং সেবা দিচ্ছে। এজেন্ট হয়ে একজন আয় করতে পারেন প্রায় ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা। 

বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, গত সেপ্টেম্বর মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে গ্রাহকরা ৬৫ হাজার ১৪১ কোটি টাকা লেনদেন করেছেন। সে হিসেবে প্রতিদিন গড়ে লেনদেন হয়েছে দুই হাজার ১৭১ কোটি টাকা। ঘণ্টায় লেনদেনের পরিমাণ ১০০ কোটি টাকারও বেশি। এই সেবার মাধ্যমে টাকা জমা পড়ে (ক্যাশ ইন) ১৯ হাজার ৭৭৭ কোটি টাকা এবং উত্তোলন (ক্যাশ আউট) হয় ১৬ হাজার ৪৬৩ কোটি টাকা। ব্যক্তি হিসাব থেকে ব্যক্তি হিসেবে পাঠানো হয় (সেন্ড মানি) ১৯ হাজার ৭৯৪ কোটি টাকা। 

 

 

Share This Article


ফাইল  ফটো

নিত্যপণ্যের দাম অসহনীয়, সীমিত আয়ের মানুষের নাভিশ্বাস

৭ দিন পর অনশন ভাঙলেন শাবিপ্রবির শিক্ষার্থীরা

আবিষ্কৃত হলো রসুলের (স.) মদিনায় হিজরতের যাত্রাপথ

ওমিক্রন ছড়িয়ে পড়া বিশ্ব অর্থনীতিতে নতুন শঙ্কা তৈরি হয়েছে: আইএমএফ

ফাইল ফটো

প্রাইভেট হাসপাতালে নিয়ে রোগীর সর্বনাশ করলো সরকারি ডাক্তার!

ফাইল ফটো

দুবাইয়ে বিশ্বের সর্ববৃহৎ পবিত্র কোরআন প্রদর্শন

কাঁচা মরিচের রসগোল্লা

রীতিমতো ঝড় তুলেছে কাঁচা মরিচের রসগোল্লা

ফাইল ফটো

৪৪তম বিসিএসের আবেদনের সময় বাড়ল এক মাস

ফাইল ফটো

কুসুম ফেলে দিয়ে শুধু ডিমের সাদা অংশ খাচ্ছেন! বিশেষজ্ঞরা কি বলছেন?

ফাইল ফটো

শাড়ির ফাঁকে উন্মুক্ত নাভি, ট্রেন্ডিং গানে ‘হট বম্ব’ উরফি!

ড. জাফর ইকবাল

শাবিপ্রবির শিক্ষার্থীদের অনশন জাফর ইকবালের অনুরোধে স্থগিত, চলবে আন্দোলন

ফাইল  ফটো

অডিটর নিয়োগের প্রশ্নফাঁসের মূল হোতা নোমান সিদ্দীকি

ফাইল ফটো

যৌতুক না পেয়ে বিকৃত যৌনাচার, স্বামী গ্রেপ্তার

ফাইল  ফটো

মিথ্যা তথ্য দেওয়ায় মিশা-জায়েদের বিরুদ্ধে মামলার হুমকি আলমগীরের

ফাইল ফটো

সিনেমার প্রচারে যাওয়া দীপিকার পোশাক নিয়ে ছি ছি