রাত ০৩:৩৫, বুধবার, ১৮ মে, ২০২২, ৪ জ্যৈষ্ঠ

করোনা নিয়ে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা নেই লন্ডনে !

লন্ডনের বাকিংহাম প্যালেসে ব্যস্ত সময় পাড় করছেন দর্শণার্থীরা
লন্ডনের বাকিংহাম প্যালেসে ব্যস্ত সময় পাড় করছেন দর্শণার্থীরা

প্রতিদিন যুক্তরাজ্যে এখন প্রায় এক লাখ মানুষ করোনায় আক্রান্ত হচ্ছে। নতুন ভাইরাস ওমিক্রন ছড়িয়ে পড়ছে সর্বত্র। কিন্তু তারপরও যুক্তরাজ্যের মানুষের এনিয়ে কোনোরকম উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা নেই। বরং তারা এখন ব্যস্ত ক্রিসমাস এবং নতুন বছর উদযাপন নিয়ে।

গত ২২ ডিসেম্বর সরকারের মন্ত্রীপরিষদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয় প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের সভাপতিত্বে। ওই বৈঠকে নতুন করে কোনো বিধিনিষেধ আরোপের কথা বিবেচনা করছেন না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন বরিস জনসন। বরং তিনি বুস্টার ডোজের উপর গুরুত্ব দিয়েছেন এবং যারা এখনো ভ্যাকসিন নেননি তাদেরকে দ্রুত ভ্যাকসিন দেয়ার কথা বলেছেন। 

 

 

লন্ডনে এখন উৎসবের আমেজ চলছে, শপিংমলগুলোতে ভিড় উপচে পড়া। গতবছর যখন প্রতিদিন গড়ে পঞ্চাশ হাজার করে মানুষ করোনায় আক্রান্ত হচ্ছিল সেই সময় লন্ডনে সর্বাত্মক লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছিল। গত বছর এখানে হয়নি ক্রিসমাস, হয়নি নববর্ষ বরণ। ফলে এবার যেনো মানুষ মরিয়া হয়ে উঠেছে, কত আক্রান্ত হলো সে খবর কেউ নিচ্ছে না।

লন্ডনে গণমাধ্যমের রিপোর্টের সঙ্গে বাস্তবতার কোন মিল নেই। দোকানপাটে মানুষ অবাধে ঘোরাফেরা করছে এবং এই সমস্ত জনগণের অর্ধেকেরই কোন রকম মাস্ক নেই। স্বাস্থ্যবিধি মানার তো কোন বালাই নেই লন্ডনে। বড় বড় শপিং মল গুলো যেমন ব্লু ওয়াটার মল, ওয়েস্ট ফিল্ড, অক্সফোর্ড স্ট্রিটে মানুষের তিল ধারণের কোন ঠাঁই নাই। এসব জায়গায় ঘুরলে কে বলবে যে যুক্তরাজ্যে এখন আক্রান্তের হার বিশ্বের সবচেয়ে বেশি। ব্রিটিশ জনগণ বলছেন যে তারা যেহেতু টিকা নিয়েছেন কাজেই ওমিক্রন আক্রান্ত হলে সেটি সাধারণ সর্দি জ্বরের মতো হচ্ছে, দশ দিনের মধ্যে তারা সুস্থ হয়ে যাচ্ছেন। একটি ইতিবাচক দিক লক্ষ্য করা গেছে যে যারা করোনার দুই ডোজ টিকা নিয়েছেন তারা ওমিক্রন আক্রান্ত হলেও জটিলতার মধ্যে পড়ছেন না। বরং তারা বাসায় চিকিৎসা নিয়েই সুস্থ হয়ে উঠছেন, হাসপাতালে যাবার প্রবণতা অনেক কমে গেছে মৃত্যুর সংখ্যা অনেক কম। যার ফলে করোনাকে পাত্তাই দিচ্ছেনা লন্ডনবাসি। এখন ব্রিটিশ সরকারের বক্তব্য থেকে স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে যে আগামী ক্রিসমাসের আগে কোন ধরনের লকডাউন এর সম্ভাবনা নেই। তবে স্থানীয় স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা আশঙ্কা করছেন যে ক্রিসমাস পর্যন্ত এই জনস্রোত যদি থাকে তাহলে হয়তো ওমিক্রনও একটি নতুন ভয়াবহ রূপ নিয়ে আসতে পারে লন্ডন বাসির মধ্যে এমন কি বিশ্ববাসীর মধ্যে।

তবে যাই হোক না কেন সেই পরিণতির কথা এখন খুব কম লন্ডনবাসী ভাবছেন। বরং তারা এখন উৎসবের আমেজ নিয়ে ব্যস্ত। বিভিন্ন শপিং মলের সামনে গান বাজনা এবং তা উপভোগ করার মতো মানুষের সংখ্যা কোনোভাবেই উপেক্ষা করার মতো নয়। শেষ পর্যন্ত এই উৎসব লন্ডনবাসির মধ্যে কি পরিণতি আনবে সেটি দেখার বিষয়। শুধু যুক্তরাজ্য নয় ইউরোপজুড়েই এখন উৎসবের আমেজ চলছে। যদিও নেদারল্যান্ড সহ কিছু কিছু দেশে কিছু নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে কিন্তু সেই নিষেধাজ্ঞা মানছে খুব কম মানুষই।

Share This Article


১০০ টাকা ছাড়িয়েছে খোলা বাজারে ডলারের দাম

আবারো বাড়লো স্বর্ণের দাম

বিশ্বকাপের আগে নিউজিল্যান্ডে বাংলাদেশের ত্রিদেশীয় সিরিজ

নর্থ সাউথের ১০টি বিলাসবহুল গাড়ি বিক্রির নির্দেশ

পল্লবীর মৃত্যু: অভিনেত্রীর প্রেমিক গ্রেপ্তার

প্লাস্টিক সার্জারি করাতে গিয়ে ২১ বছর বয়সী অভিনেত্রীর মৃত্যু

বড়বোনের বাড়িতে বেড়াতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার তরুণী

আমাকে হানিমুনে গিয়েই মেরে ফেলতে চেয়েছিল :

করোনা নিয়ন্ত্রণে এবার সেনা নামাল উত্তর কোরিয়া

‘যুদ্ধ বন্ধের’ পথ বন্ধ হয়ে গেছে: রাশিয়া

হাসপাতালে ভর্তি বিএনপি নেতা মির্জা আব্বাস

দাপুটে শেষ টাইগারদের!

পি কে হালদারকে হস্তান্তরে সময় লাগবে : দোরাইস্বামী

পদ্মা সেতুর চূড়ান্ত টোল নির্ধারণ

আরও ১০ দিনের রিমান্ডে পি কে হালদার