ভোর ০৫:৪৯, শনিবার, ২২ জানুয়ারি, ২০২২, ৮ মাঘ

প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন

মোগল স্থাপত্য জিঞ্জিরা প্রাসাদ প্রভাবশালীদের দখলে

 জিঞ্জিরা প্রাসাদ
জিঞ্জিরা প্রাসাদ

এইচ এম আমীন, কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) সংবাদদাতা

কেরানীগঞ্জের ঐতিহাসিক মোগল স্হাপত্য জিঞ্জিরা প্রাসাদ দিন দিন বেদখল হয়ে যাচ্ছে| পর্যায়ক্রমে পূর্ব পাকিস্তান ও বাংলাদেশ সরকার পুরান ঢাকার নবাববাড়ি খ্যাত আহসান মঞ্জিল ও লালবাগ কেল্লা সংরক্ষণ করলেও জিঞ্জিরা প্রাসাদ এখনো অবহেলিত|

 

এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে ১৯৭৬ সাল থেকে ১৯৯২ সাল পর্যন্ত ১১ প্রভাবশালী প্রাসাদের প্রাচীন নগর ও দেওয়াল ভেঙে বহুতল ভবন নির্মাণ করেছে| দখলদারদের কবল থেকে প্রাসাদটি উদ্ধার করে সংরক্ষণের জন্য বিগত তিন যুগ বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকায় একাধিক প্রতিবেদন ছাপা হলেও সরকার কোনো উদ্যোগ নেয়নি| কেরানীগঞ্জবাসীসহ সকল মহলের এখন প্রাণের দাবি অবিলম্বে প্রাসাদটি দখলদারদের হাত থেকে উদ্ধার করে প্রত্নতত্ত্ব নিদর্শন হিসেবে দর্শনার্থীদের উন্মুক্ত করে দেওয়া|

জানা গেছে, প্রথম দিকে মোট তিনটি ভবনের সমন্বয়ে সরকারি কর্মচারীদের আবাসনের ব্যবস্থা করে তৎকালীন প্রশাসন| কালের আবর্তে মোগল, ইংরেজ ও পাকিস্তানি শাসনের অবসান| অতঃপর স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের পর দেশের বিভিন্ন স্থানে অযত্ন-অবহেলায় থাকা বহু প্রত্নতত্ত্ব নিদর্শন সরকারের নজরে এসেছে| তারই পরিপ্রেক্ষিতে রাজধানীর অদূরে অবস্থিত সোনারগাঁওয়ের পানাম নগর ও ঈসা খাঁর প্রশাসনিক রাজধানী এখন বিশেষভাবে সংরক্ষিত| একইভাবে সংরক্ষণ করা হচ্ছে দেশের বিভিন্ন স্থানে বহু স্থাপনা| চিরাচরিতভাবে আলোর নিচে রয়ে গেছে অন্ধকার| রাজধানীর একেবারে উপকণ্ঠে অবস্থিত জিঞ্জিরা প্রাসাদ| অথচ তা সঠিকভাবে দেখভালের অভাবে স্বার্থান্বেষী মহল বিনা বাধায় দখল করে নিজেদের মতো করে ভবন নির্মাণ করেছেন| কোনো সময়ই তারা স্থানীয় প্রশাসনের জবাবদিহির আওতায় আসেনি| কোন অধিকারে তারা এমনটি করছে তাও জানা যায়নি| একাধিক বার তাদের বক্তব্য জানতে চেয়ে সদুত্তর মেলেনি| প্রশ্ন হচ্ছে-কোটি কোটি টাকার সম্পত্তি কি এভাবেই বেহাত হয়ে যাবে ?

এ বিষয় নিয়ে ঢাকা-৩ আসনের সংসদ সদস্য এবং বিদ্যুৎ ও জ্বালানি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় আহসান মঞ্জিল ও লালবাগ কেল্লার পুরাতন কাঠামো সঠিক রেখে ব্যাপক সংস্কার করা হয়েছে| জিঞ্জিরা প্রাসাদ দখল মুক্ত করতে তিনি (প্রতিমন্ত্রী) উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকার্তাকে নির্দেশ দিয়েছেন| উপজেলা চেয়ারম্যান ও দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহীন আহমেদ জানান, বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীর নির্দেশে তিনি ও নির্বাহী কর্মকর্তা জিঞ্জিরা প্রাসাদ দখল মুক্ত করে স্থায়ীভাবে রক্ষা করতে ভূমি কর্মকর্তার মাধ্যমে জরিপ করে সরকারি বিভিন্ন দপ্তরে পাঠিয়েছেন| শাহীন আহমেদ আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী হস্তক্ষেপ করলে দ্রুত প্রাসাদটি উদ্ধার ও সংরক্ষণ সম্ভব হবে| এ জন্য তিনি প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন|

স্মরণ করা যেতে পারে , ১৬৮৯ সালে বাংলার সুবাদার ইব্রাহিম তার রাজ দরবারের কেরানি ও কর্মচারীদের বসবাসের জন্য নির্মাণ করেন দৃষ্টিনন্দন তিনটি ভবন| সে কারণেই এলাকাটির নামকরণ হয় কেরানীগঞ্জ| ১৭৪০ সালে নবাব সরফরাজ খাঁর পতন হলে ক্ষমতা দখল করেন হোসেন কুলি খাঁ| ১৭৫৪ সালে ঘাতকরা কুলি খাঁকে হত্যার পর এ প্রাসাদে কুলি খাঁর পরিবারে সদস্যরা বসবাস করতে থাকে| মীর জাফর আলীর চক্রান্তে পলাশীর যুদ্ধে নবাব সিরাজউদদৌলার পতনের পর তার মা আমেনা, খালা ঘষেটি বেগম, স্ত্রী লুত্ফুন্নেছা ও তার শিশুকন্যাকে জিঞ্জিরা প্রাসাদে বন্দি করে রাখা হয়|

Share This Article


শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে ভার্চুয়াল আলোচনা চান শাবি শিক্ষার্থীরা

পুলিশের হাত থেকে বাঁচতে নদীতে ঝাঁপিয়ে পড়ে বৃদ্ধের মৃত্যু

বাড়তে পারে শীত

বাবার সম্পত্তির উত্তরাধিকারী হবে মেয়ে

তথ্য যাচাই-বাচাই না করে বিদেশিরা লোক অভিযোগ করে

নাচের ভিডিও ভাইরাল হওয়াই কাল হলো পুলিশ কনস্টেবলের

স্বাস্থ্যবিধি মানছে না কুয়াকাটা সৈকতের পর্যটকরা

ঋষভ পন্থের নতুন রেকর্ড

২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত আরও ১১ হাজার ৪৩৪

জিএম কাদেরের রোগমুক্তির জন্য কেরানীগঞ্জে দোয়া

এক অলরাউন্ডারের ব্যাটিংয়ে মান বাঁচল বরিশালের

সব পরীক্ষা স্থগিত করলো জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়

এ বছরই চালু হবে পদ্মা সেতু, মেট্রোরেল ও কর্ণফুলী টানেল

নিজদের প্রথম ম্যাচে এবারও পাকিস্তানের মুখোমুখি ভারত

জনগণের সরকার ফিরিয়ে আনতে হবে: খন্দকার মোশাররফ