সকাল ০৭:৩৭, সোমবার, ১৭ জানুয়ারি, ২০২২, ৩ মাঘ

চট্টগ্রামে মিতু হত্যার রেজিস্টার গায়েব করা কে এই পুলিশ?

মিতুকে হত্যার পরপরই পুলিশের একজন সদস্য এসে বাবুলের বাসার নিচ থেকে একটি রেজিস্টার নিয়ে যায়। এখন প্রশ্ন উঠেছে- হত্যার পরই কেন সরানো হলো সেই রেজিস্টার। আর সেই পুলিশ সদস্যই বা কে? আর কেনইবা ওই বাসায় দুটি রেজিস্টার রাখার দরকার পড়ল?

২০১৬ সালে চট্টগ্রামে পুলিশ কর্মকর্তা বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু হত্যার তদন্তে একটি তথ্য সামনে এসেছে। চট্টগ্রামে যে বাসায় বাবুল পরিবার নিয়ে বসবাস করতেন সেই ভবনে তার ফ্ল্যাটে ঢোকার আগে রেজিস্টার বইয়ে স্বাক্ষর করতে হতো। তবে রেজিস্টার ছিল দুটি। 

মিতুকে হত্যার পরপরই পুলিশের একজন সদস্য এসে বাবুলের বাসার নিচ থেকে একটি রেজিস্টার নিয়ে যায়। এখন প্রশ্ন উঠেছে- হত্যার পরই কেন সরানো হলো সেই রেজিস্টার। আর সেই পুলিশ সদস্যই বা কে? আর কেনইবা ওই বাসায় দুটি রেজিস্টার রাখার দরকার পড়ল?

আদালতের নির্দেশে মিতু হত্যা মামলার তদন্ত নতুনভাবে শুরু করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। এই তদন্তের অংশ হিসেবে ৫ বছর পর গত বুধবার আদালতে প্রথমবারের মতো সাক্ষী হিসেবে জবানবন্দি দিয়েছেন আব্দুর ছাত্তার মোল্লা। তিনি ১৯৮৯ সালে সেনাবাহিনী থেকে অবসর নিয়ে ন্যাচারাল সিকিউরিটি সার্ভিসে নিরাপত্তারক্ষী হিসেবে ছয়-সাত বছর কর্মরত আছেন। দীর্ঘদিন পর তাকে খুঁজে পেয়েছে পিবিআই। এরপর ১৬৪ ধারায় তিনি জবানবন্দি দেন।

ছাত্তার জানান, মিতুকে হত্যার সময় তিনি চট্টগ্রামের ওআর নিজাম রোডের আবাসিক এলাকায় এক নম্বর বাড়ি 'ইক্যুইটি সেন্ট্রিয়ামে' দায়িত্বরত ছিলেন। ওই সময় সেখানে তারেক নামে আরেকজন নিরাপত্তারক্ষী দায়িত্বরত ছিলেন। বর্তমানে তারেক সৌদি আরবে রয়েছেন। বাবুল আক্তার পরিবারসহ 'ইক্যুইটি সেন্ট্রিয়ামে' থাকতেন। তার বাসায় ফাতেমা নামে ১০-১২ বছরের একজন গৃহকর্মী ছিল। আর সাদ্দাম নামে এক পুলিশ সদস্য বাবুলের ছেলেকে স্কুলে আনা-নেওয়া করতেন। কোনো মেহমান এলে ঢোকার অনুমতি নেওয়ার জন্য আগে তার বাসায় ফোন করা হতো। বাবুলের বাসায় আগত লোকদের এন্ট্রি করার জন্য আলাদা একটি রেজিস্টার ছিল। ওই বাসায় আগত লোকদের সেখানে এন্ট্রি করে ঢোকানো হয়। মিতুকে হত্যার পর একজন পুলিশ সদস্য ওই রেজিস্টার নিয়ে চলে যান। তবে তার পোশাকে কোনো নাম লেখা ছিল না।
ছাত্তার আরও বলেন, বাবুল আক্তার বিদেশে থাকাকালে তার বাসায় কম লোকজন আসত। তবে বিদেশে থাকাকালে ৩৬-৩৭ বছরের এক লোক তার বাসায় আসতেন। ওই লোকের নাম মুসা। তিনি মাঝে মাঝে এসে বাজার-সদাই দিতে যেতেন। কখনও মুসা বাজার করে নিয়ে এলে গৃহকর্মীকে ডেকে বা নিরাপত্তারক্ষীরাও দিয়ে আসত। বিভিন্ন সময় বাবুল আক্তারের ভবনের বাইরে মুসার সঙ্গে তাকে কথা বলতে দেখেছি।

বাবুল আক্তারের বাসার এই নিরাপত্তারক্ষী প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে সেই দিনের ঘটনার বিবরণও জবানবন্দিতে দিয়েছেন। তিনি জানান, ২০১৬ সালের ৫ জুন সকাল সাড়ে ৬টার দিকে বাবুল আক্তারের স্ত্রী বাচ্চাকে স্কুল বাসে তুলে দেওয়ার জন্য রওনা দেন। আনুমানিক ১০ মিনিট পর ফ্ল্যাক্সে করে চা আনার জন্য ভবন থেকে বের হয়ে রাস্তায় যান ছাত্তার। তখন দেখেন ওয়েলফুডের সামনে বাবুল আক্তারের স্ত্রী মিতু পড়ে আছেন। তখন তার বাসার গৃহকর্মীকে একটা বিছানার চাদর নিয়ে আসার জন্য বলেন। বাবুল আক্তারের ছেলেকে কোলে করে বাসায় নিয়ে যান। ভবনের সবাইকে ফোন করে হত্যার বিষয়টি জানানো হয়। ভবনের লোকজন ও পুলিশ এলে মিতুকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। পরে জানতে পারেন তিনি মারা গেছেন।
 

জানা গেছে, মিতু হত্যার পর বাবুল আক্তার বাদী হয়ে পাঁচলাইশ থানায় মামলা করেছিলেন। পাঁচ বছর পর ওই মামলায় চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেয় পিবিআই। ওই দিনই বাবুল আক্তারকে প্রধান আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেন মিতুর বাবা মোশাররফ হোসেন। সেই মামলায় গ্রেপ্তার করার পর বাবুলকে রিমান্ডে নেওয়া হয়। স্ত্রী খুন হওয়ার কয়েক মাসের মাথায় পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখি হওয়ার পর চাকরি ছাড়তে বাধ্য হয়েছিলেন বাবুল আক্তার। পরে ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে চাকরি নিয়েছিলেন তিনি। গ্রেপ্তারের আগে তিনি একটি ব্যবসা শুরু করেছিলেন।
 

তবে পিবিআই বাবুলের মামলায় যে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করে, তা আদালত গ্রহণ করেননি। বাবুল আক্তারের মামলার তদন্ত নতুনভাবে শুরু করতে নির্দেশনা দেওয়া হয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআইর পরিদর্শক আবু জাফর মোহাম্মদ ওমর ফারুক সমকালকে বলেন, আদালতের নির্দেশে আমরা অধিকতর তদন্ত শুরু করেছি। একজন আদালতে জবানবন্দিও দিয়েছেন। বাবুল ও মোশাররফ হোসেন দু'জনের মামলায় এই জবানবন্দি প্রযোজ্য হতে পারে। আদালত হয়তো পড়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দেবেন। এই মামলায় এখন পর্যন্ত ছয়জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

২০১৬ সালের ৫ জুন চট্টগ্রাম নগরীর জিইসি মোড়ের কাছে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করা হয়েছিল মিতুকে।

Share This Article


 ‘সুর সপ্তক’

রাজধানীর অত্যাধুনিক ও দৃষ্টিনন্দন আন্ডারপাস ‘সুর সপ্তক’!

সাবেক বিচারপতি টিএইচ খান

সাবেক বিচারপতি টিএইচ খান আর নেই

ফাইল ফটো

ইরানের কয়েকটি শহরে ‘রহস্যময়’ বিস্ফোরণ!

 নোভাক জোকোভিচ

শেষ পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়া ছাড়তেই হলো নোভাক জোকোভিচকে

ফাইল ফটো

যে কারণে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ বিসিবির কোচ!

ফাইল ফটো

যুক্তরাষ্ট্রে জিম্মি ঘটনার নেপথ্যে পাকিস্তানি বিজ্ঞানী!

আইভী

আবারও জয়ী আইভী

ইসি সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার

নাসিক নির্বাচনে ৫০ শতাংশ ভোট পড়েছে: ইসি সচিব

মীর আব্দুল হান্নান

বসিলায় অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে এপিবিএন সদস্য

ফাইল ফটো

টিকার চতুর্থ ডোজ নেওয়ার পরও ইসরায়েলের অর্থমন্ত্রী করোনায় আক্রান্ত

ঘুমের অভাব ত্বকের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমিয়ে দেয়

ঘুমের অভাব ত্বকের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমিয়ে দেয়

ফাইল ফটো

আফগানিস্তানে মেয়েদের সব স্কুল খুলে দিচ্ছে তালেবান

ধর্মগুরু যতি নরসিংহানন্দ

ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের গণহত্যার ডাক, ভারতের ধর্মগুরুর!

স্বামী রাকিবের সাথে চিত্রানায়িকা মাহি

নাম বদলালেন চিত্রনায়িকা মাহি

উপমহাদেশের কিংবদন্তি কণ্ঠশিল্পী লতা মঙ্গেশকর

ভক্তদের প্রার্থনা করতে বললেন লতা মঙ্গেশকরের চিকিৎসক