Templates by BIGtheme NET
৮ আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ২২ জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১১ জিলকদ, ১৪৪২ হিজরি
Home » জাতীয় » সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের গাছ কারা কাটছে জানে না কেউ

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের গাছ কারা কাটছে জানে না কেউ

প্রকাশের সময়: মে ৭, ২০২১, ৮:০৪ অপরাহ্ণ

গত কয়েকদিনের মধ্যে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের কয়েকশ গাছ কেটে ফেলা হয়েছে। জানা গেছে, সেখানে কয়েকটি রেস্টুরেন্ট নির্মাণের উদ্দেশ্যে গাছগুলো কাটা হচ্ছে।

এদিকে গাছ কাটার প্রতিবাদে সেখানে মানববন্ধন করেছে বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন। মানববন্ধনে লোক সমাগম বাড়ছে। সামাজিক মাধ্যমে ‘গাছ হত্যা’ বন্ধের আহবান জানিয়ে হ্যশট্যগে যুক্ত হচ্ছে অনেকেই। অনেকেই বলছেন, লকডাউনের সময় প্রয়োজনের বাইরেও বহু গাছ কেটে ফেলা হয়েছে। এমনকী গাছ কাটার চিহ্ন মুছতে সেখানে মাটিও ভরাট করে দেয়া হচ্ছে।

কিন্তু কারা এখানে রেস্টুরেন্ট নির্মাণ করছে, কাদের কাছ থেকে অনুমোদন নিয়ে গাছ কাটা হচ্ছে, তার কোন জবাব পাওয়া যাচ্ছে না। এমনকী গণপূর্ত ও মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রনালয়ে যোগাযোগের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছেন সাংবাদিকরা।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যান শুধু একটি উদ্যান নয় বরং বাংলাদেশের ওভ্যুদয়ের সঙ্গে এর ঐতিহাসিক সম্পর্ক রয়েছে। আর যে কোন ঐতিহাসিক স্থান সংরক্ষনে হাইকোর্টের নির্দেশ রয়েছে।

উল্লেখ করার মতো বিষয় হচ্ছে, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের ঐতিহাসিক মর্যাদা রক্ষায় ২০০৯ সালে মেজর জেনারেল শফিউল্লাহ ও মুনতাসির মামুনের পক্ষে এডভোকেট মঞ্জুর মোরেশদ জনস্বার্থে একটি রিট পিটিশন দায়ের করেছিলেন। এই রিট পিটিশনে বিচারপতি খায়রুল হক ও মমতাজ উদ্দিন আহমেদ একটি নির্দেশনা দিয়েছিলেন।

নির্দেশনায় পাকিস্তান সেনাবাহিনী কোথায় আত্মসমর্পন করেছিলেন, বঙ্গবন্ধু কোথায় ৭ মার্চের ভাষন দিয়েছিলেন সে স্থানগুলো চিহ্নিত করতে বলা হয়েছিলো। এরপর বিশেষজ্ঞরা স্থানগুলো চিহ্নিত করে।

সিনিয়র সাংবাদিক নজরুল কবির বলেন, এই চিহ্নিত স্থানগুলো হচ্ছে বর্তমানের শিখা চিরন্তনী ও শিশুপার্কের ভিতরের কিছু অংশ। সেসব স্থানকে ঘিরে মুক্তিযুদ্ধ যাদুঘর নির্মানসহ বৃহৎ একটি পরিকল্পনা করা হয়।  কিন্তু বর্তমানে যেখানে গাছ কাটা হচ্ছে সেটা মূল পরিকল্পনায় নেই। এখানে কোন রেস্টুরেন্টও হওয়ার কথা নয়।

নগর পরিকল্পনাবিদরা বলছেন, এই পরিকল্পনাটি করা হয়েছিলো হাইকোর্টের নির্দেশনার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখেই। কিন্তু বর্তমানে যেই রেস্টুরেন্টগুলো করার কথা বলা হচ্ছে সেগুলোর সঙ্গে মূল পরিকল্পনার কোন সম্পর্ক নেই। এমনকী এটি হাইকোর্টের নির্দেশ অমান্যের শামিল। কাদের নির্দেশে কারা এটি করছে তা কেউ জানে না।

এ বিষয়ে সাংবাদিক মাসুদ কামাল বলেন, বঙ্গবন্ধু যখন ৭ মার্চের ভাষন দিয়েছিলেন তখন এটি ছিলো রেসকোর্স ময়দান। স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু এটিকে উদ্যান বানানোর সিদ্ধান্ত নেন। কিন্তু এখন যেভাবে গাছগুলো কাটা হচ্ছে তাতে বঙ্গবন্ধুর কাজটিই মুছে ফেলা হচ্ছে, ঐতিহাসিক মর্যাদাও নষ্ট হচ্ছে । পাশপাশি পরিবেশও বিপন্ন হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

2 + eight =