Templates by BIGtheme NET
৮ আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ২২ জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১১ জিলকদ, ১৪৪২ হিজরি
Home » জাতীয় » ‘প্রযুক্তির কল্যাণে জনসংখ্যা বাড়লেও খাদ্য নিরাপত্তার চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা সম্ভব হচ্ছে’

‘প্রযুক্তির কল্যাণে জনসংখ্যা বাড়লেও খাদ্য নিরাপত্তার চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা সম্ভব হচ্ছে’

প্রকাশের সময়: মে ৬, ২০২১, ৮:২৪ অপরাহ্ণ

কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, দেশে খাদ্য নিরাপত্তায় অনেকগুলো চ্যালেঞ্জ রয়েছে। প্রতিবছর জনসংখ্যা বাড়ছে, অন্যদিকে নানা কারণে চাষযোগ্য জমির পরিমাণ কমছে। রয়েছে জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাবও। এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় ফসলের নতুন জাত ও চাষাবাদের প্রযুক্তি উদ্ভাবিত হয়েছে। ফলে ক্রমশ জনসংখ্যা বাড়লেও খাদ্য নিরাপত্তার চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করা সম্ভব হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলায় ব্রি ধান-৮১ জাতের ‘ধান কর্তন ও কৃষক সমাবেশ’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন তিনি।

মন্ত্রী আরো বলেন, ব্রি-৮১ জাতটি; ব্রি-২৮ জাতের মতই জনপ্রিয় কৃষকরা নতুন এই জাতটি চাষে ব্যাপক আগ্রহ দেখাচ্ছেন। উচ্চ ফলনশীল এ জাত চাষের মাধ্যমে ধান উৎপাদন উল্লেখযোগ্য পরিমাণ বাড়বে এবং দেশের খাদ্য নিরাপত্তায় এটি আশানুরূপ ভূমিকা রাখবে। শুধু তাই নয়, সরকার কৃষিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে যুগোপযোগী পদক্ষেপ গ্রহণ ও বাস্তবায়নে বিভিন্ন প্রণোদনা ও গবেষণায় অর্থ বরাদ্দ এবং গবেষণাগার তৈরি, প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি প্রদান এবং বাজেট বৃদ্ধির মাধ্যমে গবেষণার উপর গুরুত্ব প্রদান অব্যাহত থাকবে। যাতে ভবিষ্যতে সকল চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধি ও খাদ্য নিরাপত্তায় বজায় রাখা সম্ভব হয়।

তিনি বলেন, আমসহ অন্যান্য ফল রপ্তানির জন্য বিদেশ থেকে ‘ভ্যাপার হিট ট্রিটমেন্ট’ মেশিন আনার প্রক্রিয়া চলছে। যার মাধ্যমে পোকা-মাকড় দমনসহ বাংলাদেশের আম বিদেশে রপ্তানি শুরু হবে এবং সেটি বর্তমান সরকারের আমলেই হবে বলে জানান মন্ত্রী।

এদিকে, সাংবাদিকদের এক প্রশ্নে হেফাজতের বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, যারা ধর্মনিরপেক্ষতাকে ধ্বংস করতে চায়, তাদের মূলোৎপাটন বাংলাদেশ থেকে করা হবে। এ বিষয়ে সরকারের অবস্থান স্পষ্ট এবং তাদের বিচার হবে বাংলার মাটিতে।

বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. শাহজাহান কবীরের সভাপতিত্বে এই সময় উপস্থিত ছিলেন- চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ডা. সামিল উদ্দীন আহমেদ শিমুল, মহিলা সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য ফেরদৌসী ইসলাম জেসি, জেলা প্রশাসক মঞ্জুরুল হাফিজ, কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব কমলারঞ্জণ দাশ, বিএডিসির চেয়ারম্যান ড. অমিতাভ সরকার, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তররের মহাপরিচালক আসাদুল্লাহ, বারির মহাপরিচালক ড. নাজিরুল ইসলামসহ স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাকর্মীরা।

পরে আম গবেষণা কেন্দ্র মন্ত্রী আম ব্যবসায়ী ও আম চাষিদের সাথে এক মতবিনিময় সভা করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

13 + 12 =