Templates by BIGtheme NET
৪ বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ১৭ এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ৪ রমজান, ১৪৪২ হিজরি
Home » ধর্ম ও জীবন » করোনা মহামারিকালে রমজানের রোজা পালন নিরাপদ : যুক্তরাজ্যের গবেষণা

করোনা মহামারিকালে রমজানের রোজা পালন নিরাপদ : যুক্তরাজ্যের গবেষণা

প্রকাশের সময়: এপ্রিল ২, ২০২১, ২:২২ অপরাহ্ণ

করোনা মহামারিকালে যুক্তরাজ্যের মুসলিমদের রমজানের রোজা পালনে মৃত্যুর হার বৃদ্ধি পায়নি বলে যুক্তরাজ্যের একটি গবেষণা প্রতিবেদনে জানা যায়। গতকাল বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) বৈশ্বিক স্বাস্থ্যবিষয়ক পিয়ার-রিভিউড সাময়িকী গ্লোবাল হেলথে এই তথ্য প্রকাশিত হয়েছে।

২০২০ সালের ৩১ জানুয়ারি যুক্তরাজ্যে সর্বপ্রথম করোনা শনাক্ত হয়। ওই বছরের ২৪ বা ২৫ এপ্রিল থেকে শুরু হয় পবিত্র রমজান মাস। এ সময় দেশজুড়ে লকডাউন জারির পাশাপাশি রমজানের আনুষ্ঠানিকতা ও মসজিদে নামাজ আদায় স্থগিত রাখে ব্রিটিশ সরকার। তদুপরি বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো ব্রিটেনের মুসলিমরাও পুরো মাস রোজা পালন করেন। বৈশ্বিক মহামারির দুঃসময়ে নিজেদের অন্তরকে সুদৃঢ় রাখতে অনেককে তা সহায়তাও করে।

গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পবিত্র রমজানে মাসে যুক্তরাজ্যের যারা রোজা পালন করেছেন করোনা সংক্রমণে তাঁদের বেশি মৃত্যু হয়েছে এমন কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

প্রতি বছর বিশ্বের অসংখ্য মুসলিম পবিত্র রমজান মাসে রোজা পালন করেন। ইসলামী বিধান মতে, তাঁরা সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত সব ধরনের খাবার এবং পানীয় গ্রহণ থেকে বিরত থাকেন। যুক্তরাজ্যের মোট জনসংখ্যার পাঁচ শতাংশ প্রায় ৩০ লাখের বেশি মুসলিম বসবাস করেন। তাদের বেশিরভাগই দক্ষিণ এশীয় বংশোদ্ভূত।

ব্রিটেনের অন্যান্য সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মতো অনেক মুসলিমও করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘আমাদের গবেষণায় দেখা যায়, করোনাভাইরাসে মৃত্যুর ওপর রমজান মাসের আনুষ্ঠানিকতা পালনের ক্ষতিকর প্রভাব নেই।’

ইংল্যান্ডের এক ডজনের বেশি স্থানীয় কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে সংগৃহীত করোনায় মৃত্যুর ডাটা বিশ্লেষণ করে ওই প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে। এসব এলাকায় মুসলিম জনগোষ্ঠীর সংখ্যা প্রায় ২০ শতাংশ। গত বছরের রমজানের সময় করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের মৃত্যুর তুলনামূলক বিশ্লেষণে এসব তথ্য মিলেছে বলে গবেষণায় দাবি করা হয়েছে।

গবেষকরা দেখেছেন, ইংল্যান্ডের এই এলাকাগুলোতে রমজান শুরু হওয়ার পর করোনায় মৃত্যুর হার ধারাবাহিকভাবে কমে যায়। এছাড়া মৃত্যুর হার কমে যাওয়ার এই গতি পুরো রমজান মাসজুড়ে অব্যাহত থাকে। গবেষকরা বলেছেন, মুসলিম অধ্যুষিত এলাকাগুলোতে রমজান মাস পালনের কারণে করোনার ক্ষতিকর কোনো প্রভাব দেখা যায়নি।

গবেষণা সহকারী সালমান ওয়াকার বলেন, করোনাভাইরাস মহামারির ওপর রমজানের ক্ষতিকর প্রভাবের আলামত পাওয়া যায়নি। তবে দেশটির কিছু রাজনীতিবিদ এবং বিশ্লেষকদের মন্তব্যের সঙ্গে এই গবেষণার ফল সাংঘর্ষিক বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি।

কারণ দেশটির অনেক বিশ্লেষক ও রাজনীতিবিদ গত বছর কিছু কিছু এলাকায় করোনাভাইরাসের উল্লম্ফনের জন্য নির্দিষ্ট কিছু সম্প্রদায়— বিশেষ করে মুসলিমদের দায়ী করেছিলেন।

ব্রিটেনের মুসলিমদের বৃহত্তম সংগঠন দ্য মুসলিম কাউন্সিল অব ব্রিটেন (এমসিবি)-এর মুখপাত্র আক ওমর বেগ বলেন, এই গবেষণা প্রতিবেদন রাজনীতিবিদ এবং বিশ্লেষকদের নেতিবাচক ধারণা বাতিল করে দিয়েছে।

যুক্তরাজ্যে আগামী ১৩ এপ্রিল থেকে রমজান শুরু হবে। এর দুই সপ্তাহ আগে গতকাল এই গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশিত হলো।

সূত্র: আলজাজিরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

one × five =