Templates by BIGtheme NET
১১ মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ২৫ জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১১ জমাদিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি
Home » জাতীয় » ইংরেজদের কূটকৌশলের বলি হয় বাংলার মসলিন!

ইংরেজদের কূটকৌশলের বলি হয় বাংলার মসলিন!

প্রকাশের সময়: জানুয়ারি ১৩, ২০২১, ৩:৪৩ অপরাহ্ণ

এ জেড ভূঁইয়া আনাস:

১৬১০ সালে সম্রাট জাহাঙ্গীরের সময় ইসলাম খান চিশতী রাজমহল থেকে ঢাকায় রাজধানী স্থানান্তর করলে ঢাকা ইতিহাসের প্রসিদ্ধতা লাভ করে। কিন্তু ঢাকার ইতিহাস বেশি পুরনো না হলেও মসলিনের ইতিহাস অনেকটাই পুরনো ও দীর্ঘ। প্রথম খ্রিস্টাব্দের প্রথম শতকেই রোম সাম্রাজ্যের স্বর্ণযুগে অভিজাত রোমান নারীরা ঢাকার মসলিন পড়ে নিজেদের সৌন্দর্য্য প্রদর্শন করতে ভালোবাসতেন। একই শতকে রচিত ‘পেরিপ্লাস অব দ্য এরিথ্রিয়ান সি’ শীর্ষক গ্রন্থে মসলিন সম্পর্কে তথ্য পাওয়া যায়।

এছাড়া নবম শতকের সিলসিলাত উত তাওয়ারীখ, চতুর্দশ শতকে বাংলায় আসা মরক্কোর পরিভ্রাজক ইবনে বতুতার কিতাবুর রেহালা, এমনকি সম্রাট আকবরের সভাসদ আবুল ফজলও সুক্ষ্ম বস্ত্র মসলিনের প্রশংসা করতে ভুলেন নি। সে সময় মসলিনের সুখ্যাতি এতোই বেশি ছিলো যে, বিভিন্ন দেশের বণিকরা এই মসলিনের জন্যই বাংলায় এসেছিলো।

১৭৬৩ সালের জুন মাসের কথা। ইউরোপের বিভিন্ন বাজারে বিক্রির জন্য “দ্যা ফক্স”নামে যে জাহাজটি বিভিন্ন পণ্য নিয়ে বাংলা থেকে যাত্রা করেছিলো তার বড় অংশ জুড়ে ছিলো হরেক রকম বস্ত্র। আর এই বস্ত্রের সিংহভাগ জুড়ে ছিলো ঢাকার সুপ্রসিদ্ধ মসলিন কারিগরদের অন্যতম শ্রেষ্ঠ সৃষ্টি মলমল নামের একপ্রকার বস্ত্র। পুরো ১৮ শতক জুড়েই এরকম শত সহস্র জাহাজ বাংলা থেকে নিয়ে গেছে সে সময়ের হিসাবে লক্ষ লক্ষ টাকার মসলিন।

১৮ শতকের দ্বিতীয়ার্ধে মসলিনের বিক্রি মুঘল সাম্রাজ্যে প্রায় শূণ্যের কোঠায় এসে ঠেকলেও ইউরোপের বাজারে তখনো টিকে ছিল। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক হল, ১৭৮০ তে ইংল্যান্ডের শিল্প বিপ্লব মসলিন তাঁতীদের ওই শেষ আশ্রয়টাও ধ্বংস করে দেয়।

ঢাকা থেকে আমদানিকৃত মসলিনের উপর তারা শতকরা ৭০-৮০ভাগ কর বসায়। পত্রপত্রিকায় চালানো হয় মসলিন নিয়ে নানান অপপ্রচার। শুধু তাই নয়, কথিত আছে, দেশীয় তাঁতীরা যাতে মসলিন বোনার কৌশল পরবর্তী প্রজন্মকে শেখাতে না পারে সেজন্য তাদের হাতের বৃদ্ধাঙুলও কেটে দিয়েছিলো স্থানীয় ইংরেজ বনিকরা।

এভাবে ইংরেজ কুটকৌশল আর অত্যাচারের শিকার হয়ে ১৯ শতকের মাঝামাঝিতে পুরোপুরিই বিলুপ্ত হয়ে যায় ঢাকার মসলিনশিল্প।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

three + 15 =