Templates by BIGtheme NET
২১ অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ৬ ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ , ২০ রবিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি
Home » আন্তর্জাতিক » বয়কট ফ্রান্স: ফ্রান্সের মুসলিমদের বিপদে ফেলবে কি?

বয়কট ফ্রান্স: ফ্রান্সের মুসলিমদের বিপদে ফেলবে কি?

প্রকাশের সময়: নভেম্বর ২, ২০২০, ৬:৩০ অপরাহ্ণ

মহানবী হযরত মুহাম্মদ স. এর কটুক্তি প্রদর্শনের ব্যাপারে মন্তব্য করে মুসলিম বিশ্বের দেশগুলোতে তুমুল সমালোচনার মুখে পড়েছেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাঁক্রো। ফরাসি পণ্য বর্জনের ডাক দেওয়া হয়েছে জর্ডান, কাতার, কুয়েত ও সৌদি আরবসহ অনেক দেশে। সর্বশেষ এমন আহ্বান জানিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান। এই অবস্থায় ফ্রান্সে অবস্থানরত মুসলমানদের কোন ধরণের বিপদে ফেলবে না তো?

ফ্রান্সে অবস্থানরত মুসলিমরা বলছেন, এই ধরণের বয়কটের ডাক ফ্রান্সে অবস্থানরত মুসলমান ও অন্য ধর্মাবলম্বীদের মধ্যে দুরত্ব তৈরি করবে। যা কোন ভাবেই সমর্থন যোগ্য নয়। তাই যারা এটি কে সুষ্ঠভাবে সমাধানে কাজ করছেন তাদের পক্ষেই অবস্থান করছেন ফরাসি মুসলিমরা।

ফরাসি মুসলিম ইমাম ও শিক্ষক ইসমাইল মনির বলেন, মানুষজন বয়কট করার চেষ্টা করে উত্তেজনা বাড়িয়ে দিচ্ছে। আমি এই ধরনের উপায়ের পক্ষে নই। কারণ এটির একটি ফরাসি প্রেক্ষাপট আছে। এখানে একটি মুসলিম সম্প্রদায় আছে। যারা অধিকাংশই শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করতে চায়। তারপরও আমরা জানি সেখানে সমস্যা হয় হামলা হয় এখানে অনেক সংমিশ্রন আছে। এখানে ভুল বুঝাবুঝি হয় এবং উত্তেজনা বাড়ছে। এবং আমি তাদের সমর্থন করি যারা পরিস্থিতি সমাধান করার চেষ্টা করছেন। কথাবার্তা বলছেন এবং শান্তিশৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করছেন।

এদিকে ফরাসি মুসলিম কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ আহবান জানিয়েছেন, ফ্রান্সে অবস্থানরত মুসলমানরা যেন কোন ভাবেই পণ্য বর্জনের বিষয়ে কোনভাবেই পাত্তা না দেয়। এবং শৃঙ্খলা বজায় রাখে।

ফ্রেঞ্চ কাউন্সিল অফ মুসলিম ওরশিপ এর প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুসাউয়ি বলেন, আমরা অবশ্যই আমাদের দেশের স্বার্থ রক্ষার আহ্বান জানাই। ফরাসি পণ্য বর্জনের বিষয়ে আমরা ফ্রান্সের মুসলিমদের বলবো যেন তারা সতর্ক থাকে ও এগুলোতে পাত্তা না দেয়। এগুলোর মাধ্যমে আমাদের সমাজকে বিভক্ত করে অমুসলিম নাগরিকদের আলাদা করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, একজন কার্টুনিস্টের ব্যঙ্গচিত্র আকার স্বাধীনতা রয়েছে। আর এটি যে ফরাসি মুসলিমদের পছন্দ করতেই হবে এমন না। এমনকি তারা এটিকে ঘৃণাও করতে পারে। কিন্তু ব্যঙ্গ চিত্র আঁকার জন্য কোন ব্যক্তিকে হত্যা বা শারীরিক ক্ষতি করা হবে এটি কোনভাবেই কাম্য নয়।

তুর্কি রেস্তোরাঁ মালিক পিয়ের বলেন, ফ্রান্স যেমন পরিবর্তন হবে না তেমনই এরদোগানও হবে না। ফ্রান্স ধর্মনিরপেক্ষতাকে হারিয়ে যেতে দেবে না আর এরদোগানও ইসলামবাদ কে হারিয়ে যেতে দিবে না। কারণ তারা এটিকে কাজে লাগাতে পারে, এর মাধ্যমে তারা প্রতিবার নির্বাচনে জেতে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

7 + four =