Templates by BIGtheme NET
১৬ অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ১ ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ , ১৫ রবিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি
Home » জাতীয় » রোহিঙ্গা ইস্যুতে একাই লড়াই করছে বাংলাদেশ

রোহিঙ্গা ইস্যুতে একাই লড়াই করছে বাংলাদেশ

প্রকাশের সময়: অক্টোবর ২১, ২০২০, ৪:১৬ অপরাহ্ণ

এ জেড ভূঁইয়া আনাস: রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন ইস্যুতে একাই লড়াই করছে বাংলাদেশ। প্রথমদিকে বিভিন্ন দেশ বাংলাদেশের পাশে দাঁড়ানোর কথা বললেও দিন যত যাচ্ছে ভোল পাল্টাচ্ছেন অনেকেই। পশ্চিমার রাষ্ট্রগুলো রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে স্থায়ী করতে চায় বলে ইতোমধ্যে অভিযোগ উঠতে শুরু করেছে। আর বাংলাদেশ পাশে পাচ্ছে না দুই বন্ধু দেশ চীন-ভারতকেও। এমনকি মুসলিম দেশগুলোও পশ্চিমাদের সুরে কথা বলছেন। এতে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন ইস্যুতে আন্তার্জাতিক বিশ্ব ক্রমেই বাংলাদেশের পাশ থেকে সরে যাচ্ছে বলে মনে করেন বিশ্লেষকরা।

২০১৭ সালে মিয়ানমার থেকে রোহিঙ্গারা বিতাড়িত হলে বাংলাদেশ তাদের আশ্রয় দেয়। সে সময় যুক্তরাষ্ট্র, চীন ও ইউরোপিয় ইউনিয়নসহ আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো বাংলাদেশকে সাধুবাদ জানিয়ে পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছিলো। সে হিসেবে রোহিঙ্গাদের খরচ নির্বাহের জন্য বিভিন্ন দাতা সংস্থা ও দেশ বাংলাদেশকে অর্থ সহায়তাও দিয়ে আসছে। কিন্তু হঠাৎ করে গত মাসে বিশ্বব্যাংকের পক্ষ থেকে রোহিঙ্গাদের দেওয়া সব অনুদান বন্ধের ঘোষণা দেওয়া হয়। এবং ব্যাংকটির পক্ষ থেকে বাংলাদেশকে ঋণ নেওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়।

অন্যদিকে, রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে স্থায়ী করতে মরিয়া হয়ে উঠতে দেখা যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপিয় ইউনিয়নসহ আন্তর্জাতিক রাষ্ট্রগুলোকে। ইতোমধ্যে তারা বাংলাদেশকে মাল্টিইয়ার প্লানিংয়ের প্রস্তাবও দিয়েছে। যা প্রত্যাখ্যান করেছে বাংলাদেশ। এছাড়া তারা দক্ষিণ এশিয়ায় একটি শরণার্থী জোন করারও চিন্তা করছে। যা রোহিঙ্গাদের সাথে মিলিয়ে বাংলাদেশে গড়ে তোলা হতে পারে বলে ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে। সে ক্ষেত্রে এটি বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বের জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়াতে পারে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

এসম্পর্কে বিশিষ্ট কলামিস্ট ও আন্তর্জাতিক বিশ্লেষক মেহেদী হাসান পলাশ বলেন, ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অব জাস্টিসের যে রায় নিয়ে বাংলাদেশ অতি আশাবাদী, সে জায়গায়ও বাংলাদেশ হতাশ হতে পারে। জাতিসংঘসহ শক্তিধর রাষ্ট্রগুলোর এই রায়ের মূল্যায়ণ করার সম্ভবনা নেই। কাজেই রায় পাশ্চাত্য ও বেনিয়াদের মিয়ানমারে বাণিজ্য সুবিধা আদায়ে কিছু বার্গেইনিং পয়েন্ট ভারি করবে বলেও মনে করেন তিনি।

এদিকে, শুধু ইউরোপ ও পাশ্চাত্যের দেশগুলো নয়, রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে স্থায়ী করতে সমর্থন দিচ্ছে মুসলিম রাষ্ট্রগুলোও। যার মূল নেতৃত্বে রয়েছে সৌদি আরব। দেশটি ইতোমধ্যে তার দেশের ৬০ হাজার রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশে ফিরিয়ে আনতে প্রবল চাপ সৃষ্টি করে চলেছে।

এসম্পর্কে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেন বলেন, সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর মূলত, নিজস্ব কোন ইচ্ছা শক্তি নেই। তারা নিজেদের ক্ষমতাকে দীর্ঘায়িত করতে পশ্চিমাদের ইচ্ছাই নিজেরা প্রকাশ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

1 × one =