Templates by BIGtheme NET
১৩ কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ২৯ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ , ১১ রবিউল আউয়াল, ১৪৪২ হিজরি
Home » বিশেষ সংবাদ » আ.লীগের তৃণমূলের ত্যাগী কোনঠাসাদের জন্য সুখবর

আ.লীগের তৃণমূলের ত্যাগী কোনঠাসাদের জন্য সুখবর

প্রকাশের সময়: সেপ্টেম্বর ২০, ২০২০, ৮:০২ অপরাহ্ণ

মোহাম্মাদ এনামুল হক এনা: বাংলাদেশের রাজনীতিতে অন্যতম সফল রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। দীর্ঘ সময় ধরে রাষ্ট্র পরিচালনায় থাকায় ক্ষমতার স্বাদ নিতে তৃণমূলপর্যায়ে কয়েকটি বলয়ে নিয়ন্ত্রিত হয় দলটির রাজনীতি। আর এসব বলয়ের নেতৃত্বে থাকেন সাংসদ, মেয়র, জেলা আ.লীগের শীর্ষ নেতারা। ফলে দলের রাজনীতিতে পরীক্ষিত হলেও ওইসব নেতাদের আশির্বাদ না পাওয়ায় কোণঠাসা হয়ে থাকতে হয় তাদের।

অতি সম্প্রতি দলীয় রাজনীতিতে ব্যক্তিগত বলয় ভেঙে দলের নিবেদিত, পরীক্ষিত নেতাকর্মীদের সমন্বয়ে তৃণমূল গঠনে কঠোর অবস্থান ঘোষণা করেছেন আ.লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সূত্র জানায়, প্রায় একযুগ ধরে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় রয়েছে আ.লীগ। ক্ষমতার এ সময়ে মাঠ ও ভোটের রাজনীতিতে দলটি সফল হলেও উল্টো চিত্র ঘরের রাজনীতিতে। বিশেষ করে দলের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব, গ্রুপিং ও ক্ষমতার লোভ এবং দায়িত্বশীল নেতাদের বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে দিন দিন অতিষ্ঠ হয়ে উঠছে দলটি।

সূত্রটি আরও জানিয়েছে, স্থানীয় প্রভাবশালী নেতা ও অধিকাংশ এমপি-মন্ত্রীর বলয়ভিত্তিক রাজনীতির কারণে প্রায়ই ঘটছে সংঘর্ষ, হামলা, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া এমনকি খুনাখুনির মত ভয়াবহ ঘটনাও। একের পর এক মামলার শিকার হচ্ছেন দলের নেতাকর্মীরা।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এমপি ও এমপি পরিবারের সদস্যরা ক্ষমতার প্রভাবে এককভাবে নিয়ন্ত্রণ করছে তৃণমূল আওয়ামী লীগের রাজনীতি। শুধু তাই নয়, দল ও সহযোগী সংগঠনের কমিটি গঠনে অধিকাংশ এমপিই নিজ পরিবার ও পছন্দের লোকদের দায়িত্বশীল পদ-পদবিতে স্থান করে দিচ্ছেন।

তৃণমূলের অভ্যন্তরীণ গ্রুপিং রাজনীতির কারণে একদিকে যেমন দল জনপ্রিয়তা হারাচ্ছে অন্যদিকে অভিমানে দূরে সরে যাচ্ছেন দলটির ত্যাগী, পরিশ্রমী ও পরীক্ষিত নেতারা।

জানা গেছে, ইতোমধ্যে দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা দলের তৃণমূলে সৃষ্ট দ্বন্দ্ব ও দুর্বলতা দূর করতে একজন প্রেসিডিয়াম সদস্য, বিভাগীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, সংশ্লিষ্ট বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক, সম্পাদকমণ্ডলীর এক সদস্য এবং কার্যনির্বাহী সংসদের একজন সদস্যের সমন্বয় করে কমিটি করতে নির্দেশনা দিয়েছেন।

এ বিষয়ে আ.লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আবদুর রহমান বলেন, হাইব্রিড বা বিতর্কিতদের দলীয় পদে বসানো হবে না। ব্যক্তিবলয় ভাঙতে নেত্রী আমাদের কঠোর নির্দেশনা দিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

15 + 8 =