Templates by BIGtheme NET
১১ আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ , ৮ সফর, ১৪৪২ হিজরি
Home » খেলাধূলা » রিয়ালের বিদায়ঘণ্টা, কোয়ার্টার ফাইনালে ম্যান সিটি

রিয়ালের বিদায়ঘণ্টা, কোয়ার্টার ফাইনালে ম্যান সিটি

প্রকাশের সময়: আগস্ট ৮, ২০২০, ৯:৫০ পূর্বাহ্ণ

রাউন্ড অব সিক্সটিন থেকেই ছিটকে গেলো রিয়াল মাদ্রিদ। দ্বিতীয় লেগেও ম্যানচেস্টার সিটির কাছে ২-১ গোলে হেরে গেছে জিদানবাহিনী। ফলে ৪-২ ব্যবধানে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করে সিটিজেনরা। ১৫ আগস্ট শীর্ষ আটের লড়াইয়ে তাদের প্রতিপক্ষ অলিম্পিক লিঁও।

একটা গেম নিয়ে জিদান পরিকল্পনা আঁটলে, চোখ বন্ধ করে ভরসা রাখা যায় তার উপর। গেল কয়েক মৌসুম ধরে এই আস্থার জায়গা তিনি তৈরি করেছেন, প্রমাণ করেছেন নিজেকে। তাই রিয়াল মাদ্রিদ ২-১ ব্যবধানে পিছিয়ে থাকলেও ম্যানচেস্টার সিটির বিপক্ষে এই ম্যাচ নিয়ে যথেষ্টই স্বপ্নবাজ ছিলেন ভক্তরা।

তবে এটাও ভুলে গেলে চলে না সিটিজেনদের আছে একজন গার্দিওলা। সেই যাই হোক, কার রসদ ভাণ্ডারে কি আছে, তার চেয়েও বড় কথা হলো প্রয়োজনে সেটা কাজ করে কতটুকু! সেখানেই যেন খেই হারালেন ভারানে। ডি বক্সের ভেতরে তার অদ্ভুতুড়ে ভুলের সুযোগ নেয় ম্যান সিটি। ঠাণ্ডা মাথার ফিনিশিংয়ে দলকে এগিয়ে দেন রাহিম স্টার্লিং।

রিয়াল মাদ্রিদের জন্য কোয়ার্টার ফাইনালের হিসেব মেলানো তখন আরো কঠিন। সেটা বুঝতে পেরেই কি’না প্রতিপক্ষের রক্ষণে মুহুমুর্হু ছুটলেন হ্যাজার্ড বেনজেমারা। এডারসনের বিশ্বস্ত গ্লাভস দলকে কয়েকবার রক্ষা করলেও, আর পারেনি ২৮ মিনিটে। কারণ রদ্রিগোর বাড়িয়ে দেয়া বল মাথা ছুঁইয়ে এতটাই নিখুঁত ভাবে বেনজেমা গোলে পরিণত করেন যেটা ফেরানো ছিলো অসম্ভব।

জমে উঠে ম্যাচ। নতুন সম্ভাবনার পথ দেখায় রিয়াল মাদ্রিদ। তবে সিটিজেনরাও ছেড়ে দেবার পাত্র নয়। আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে এগিয়ে চলে খেলা। এভাবে শেষ হয় প্রথমার্ধ। চমকের অপেক্ষায় শুরু ম্যাচের পরের ভাগ। গোলের খোঁজে হন্যে হয়ে অতিথিরা। তাদের একটি মাত্র স্কোরে খেলা যাবে অতিরিক্ত সময়ে।

তবে এই দিন চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সবচেয়ে সফলতম দলটির ছিলো না। তাই রদ্রিগোর জায়গায় এসেনসিওকে মাঠে নামিয়েও কোন কাজের কাজ করতে পারেনি জিদান। উল্টো ৬৮ মিনিটে আবারো গোল খেয়ে বসে তারা। এবারও মস্ত ভুল ভারানের পা থেকেই। যা হেলায় নষ্ট করেননি গ্যাব্রিয়েল জেসুস।

এরপর আর ম্যাচে খুব বেশি কিছু অবশিষ্ট ছিলো না। তবুও রিয়ালের আস্থার প্রতীক জিনেদিন জিদান চেষ্টা করে গেছেন। কার্ভাহাল, মদ্রিচ, হ্যাজার্ডদের বদলিয়েছেন। কিন্তু বদলাতে পারেননি ম্যাচের ভাগ্য। ফলে এখানেই থামতে হয় তাদের। ততক্ষণে সিটির পরিকল্পনা শুরু হয়ে গেছে কোয়ার্টার ফাইনালে অলিম্পিক লিঁও’কে নিয়ে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

two × three =