Templates by BIGtheme NET
২৬ শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ১০ আগস্ট, ২০২০ ইং , ১৯ জিলহজ্জ, ১৪৪১ হিজরী
Home » ধর্ম ও জীবন » পরিবারের একজন কুরবানি করলে বাকিদের আদায় হয়ে যাবে কিনা?

পরিবারের একজন কুরবানি করলে বাকিদের আদায় হয়ে যাবে কিনা?

প্রকাশের সময়: জুলাই ৩০, ২০২০, ১২:৩৪ পূর্বাহ্ণ

 

কুরবানির বিধান যুগে যুগে সব শরিয়তেই বিদ্যমান ছিল। মানব সভ্যতার সুদীর্ঘ ইতিহাসে প্রমাণিত যে, পৃথিবীর সব জাতি ও সম্প্রদায় কোনো না কোনোভাবে আল্লাহর দরবারে তার প্রিয় বস্তু উৎসর্গ করতেন। উদ্দেশ্য একটাই- আল্লাহ তাআলার সন্তুষ্টি অর্জন।

সুরা হজ্জের ৩৪ নাম্বার আয়াতে আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘আমি প্রত্যেক উম্মতের জন্যে কুরবানির এক বিশেষ রীতি পদ্ধতি নির্ধারণ করে দিয়েছি, যেন তারা ওই সব পশুর ওপর আল্লাহর নাম নিতে পারে, যা আল্লাহ তাদেরকে দান করেছেন।’

এখন প্রশ্ন হলো কার উপর কোরবানি ওয়াজিব এবং পরিবারের একজন কুরবানি করলে বাকিদের আদায় হয়ে যাবে কিনা?

কুরবানির দিনসমূহে যার কাছে আবশ্যকীয় প্রয়োজন অতিরিক্ত নেসাব পরিমাণ সম্পদ থাকে, তাহলে তার উপর কুরবানি করা আবশ্যক। নেসাব পরিমাণ হল, সাড়ে বায়ান্ন তোলা বা এর সমমূল্য পরিমাণ অতিরিক্ত সম্পদ মজুদ থাকা। যা বর্তমান বাজার অনুপাতে প্রায় চল্লিশ হাজার টাকা।

পরিবারের যত প্রাপ্ত বয়স্ক সদস্যের নিসাব পরিমাণ সম্পদ থাকবে, তাদের প্রত্যেকের উপর আলাদা কুরবানি করা আবশ্যক। শুধু এক অংশ গ্রহণ করার দ্বারা কুরবানির দায়িত্ব মুক্ত হবে না। বরং কুরবানি না করার গোনাহ হবে।

সুরা নাজমের ৩৮ নাম্বার আয়াতে বলা হয়েছে, কোন ব্যক্তি কারও বোঝা নিজে বহন করবে না।

ইবনে মাজাহ’র ৩১২৩ হাদিস উল্লেখ আছে, রাসুল সা. বলেন, যে ব্যক্তির সামর্থ্য আছে অথচ সে কুরবানি করেনি সে যেন আমাদের ঈদগাহের নিকটবর্তী না হয়।

আল-মাওসুআ আল-ফিকহিয়্যা গ্রন্থে (৫/৮১) এসেছে, কুরবানি ওয়াজিব হওয়া কিংবা সুন্নত হওয়ার জন্য পুরুষ হওয়া শর্ত নয়। কুরবানি পুরুষদের উপর যেমন ওয়াজিব হয় তেমনি নারীদের উপরও ওয়াজিব হয়। কারণ ওয়াজিব হওয়ার দলিলগুলো নর-নারী সবাইকে সমানভাবে শামিল করে।

যদি আপনার জমানো টাকা নিসাব পরিমাণ সম্পদের সমমানের হয়, এবং তা কুরবানির দিনসমূহের প্রয়োজন অতিরিক্ত হয়, তাহলে কুরবানি করা ওয়াজিব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

1 × 5 =