Templates by BIGtheme NET
২২ শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ৬ আগস্ট, ২০২০ ইং , ১৫ জিলহজ্জ, ১৪৪১ হিজরী
Home » করোনাভাইরাস » যে কারণে করোনার প্রকোপ কম শ্রমজীবীদের মধ্যে

যে কারণে করোনার প্রকোপ কম শ্রমজীবীদের মধ্যে

প্রকাশের সময়: জুলাই ৪, ২০২০, ১:০৪ অপরাহ্ণ

নিম্ন আয়ের মানুষ ও বস্তিবাসীর মধ্যে করোনাভাইরাসের প্রকোপ কম—এমনটাই বলছেন এসংক্রান্ত কাজে যুক্ত বিশেষজ্ঞরা। কেন নিম্ন আয়ের মানুষের মধ্যে সংক্রমণের বহিঃপ্রকাশ কম দেখা যাচ্ছে সে বিষয়টি নজরে এসেছে তাদের।

সম্প্রতি আইইডিসিআর-এর পক্ষ থেকে বলা হয়, বস্তিবাসী যাদের পরীক্ষা করা হয়েছে তাদের মধ্যে করোনা পজিটিভের হার খুবই কম।

এদিকে, বিষয়টি নিয়ে প্রাথমিক ধারণা দিয়েছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। তারা বলেন, এ শ্রেণির মানুষ শারীরিকভাবে বেশি পরিশ্রম করে। বেশিরভাগ সময় তারা ঘরের বাইরে খোলামেলা পরিবেশে কাজ করে। ফলে তারা তুলনামূলক বেশি শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার সুযোগ পায়। এর প্রভাব থাকতে পারে।

এছাড়া শারীরিক পরিশ্রম, রোদ, বাতাস ও মাটির সংস্পর্শে থাকলে শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। হয়তো এসব কারণেই শ্রমজীবী মানুষের করোনায় আক্রান্তের হার কম বলে জানান তারা।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, সচেতনতা ও সামর্থের অভাবে নিম্ন আয়ের মানুষ জ্বর-সর্দি হলে খুব একটা পাত্তা দেননা। তাই হয়তো তাদের মধ্যে আক্রান্তের বিষয়ে জানা যাচ্ছে না। আবার করোনায় আক্রান্তের ৮০ শতাংশের কোন উপসর্গ থাকে না। অনেকে আবার এমনিতেই সুস্থ হয়ে যাচ্ছে। তাদের মতে এ বিষয়ে গবেষণা না করে নির্দিষ্ট কোনো সিদ্ধান্তে আসা যাবে না।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) সাবেক উপাচার্য ও কোভিড-১৯ বিষয়ক পরামর্শক কমিটির সদস্য অধ্যাপক ডা.নজরুল ইসলাম এ প্রসঙ্গে বলেন, কেন শ্র্রমজীবী বা নিম্ন আয়ের মানুষের মধ্যে করোনা সংক্রমণের হার কম, তা আমরা জানি না। এজন্য গবেষণার প্রয়োজন। তাদের কি ইমিউনিটি আছে, তা জানতে গবেষণার দরকার।

তিনি বলেন, তাদের সামাজিক-আর্থিক ও পারিপার্শ্বিক অবস্থানের কারণে এরইমধ্যে তারা অনেক ধরনের ভাইরাস দ্বারা সংক্রমিত হয়েছেন। হয়তো করোনা রিলেটেড কোনো ভাইরাস দ্বারা তারা আগেই আক্রান্ত হয়েছেন। তাই এখন করোনায় আক্রান্ত হচ্ছে না।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ মেডিসিন সোসাইটির মহাসচিব ও ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. আহমেদুল কবীর বলেন, ‘আমরা ঢাকা মেডিক্যালসহ অন্য হাসপাতালগুলোতেও করোনায় আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে অপেক্ষাকৃত নিম্ন আয়ের মানুষ অনেকটাই কম দেখছি। আমার মনে হয়, উচ্চ ও মধ্যবিত্তদের খাদ্যাভ্যাস ও জীবনযাপনের চেয়ে বস্তিবাসী বা নিম্ন আয়ের মানুষের খাদ্যাভ্যাস ও জীবনযাপন বেশি রোগ প্রতিরোধমূলক। বিশেষ করে শারীরিক পরিশ্রম করায় নিম্ন আয়ের বা বস্তিবাসীর মধ্যে ডায়াবেটিসের মতো রোগ কম। যদিও এর কোনো বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা নেই বলেও জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

twenty + three =