Templates by BIGtheme NET
২৪ শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ৮ আগস্ট, ২০২০ ইং , ১৭ জিলহজ্জ, ১৪৪১ হিজরী
Home » জাতীয় » সড়কে নতুন আইন: ৭ লাখ ড্রাইভিং লাইসেন্স এর চাপে বিআরটিএ

সড়কে নতুন আইন: ৭ লাখ ড্রাইভিং লাইসেন্স এর চাপে বিআরটিএ

প্রকাশের সময়: ডিসেম্বর ৪, ২০১৯, ৩:২০ অপরাহ্ণ

মোহাম্মাদ এনামুল হক এনা: সড়কে নতুন আইন কার্যকর করার পর থেকে রাজধানীসহ দেশের সকল বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) অফিসগুলোতে ড্রাইভিং লাইসেন্স, গাড়ির লাইসেন্স, মালিকানা পরিবর্তনের জন্য গ্রাহকদের ভিড় বেড়েছে কয়েকগুন। হঠাৎ এ অতিরিক্ত আবেদনের কারণে ভোগান্তিতে পড়েছেন সেবা প্রার্থীরা। অন্যদিকে কর্মকর্তারাও নির্ধারিত সময়ের বেশি সেবা দিতে গিয়ে কর্ম-ক্লান্ত হয়ে পড়েছেন।

একদিকে আদালতের নির্দেশনা অন্যদিকে নতুন আইন কার্যকরের পর উদ্ভূত চাপে বেসামাল বিআরটিএ কর্তৃপক্ষ।

বিআরটিএ দফতর সূত্রে জানা গেছে, ৭ লাখ ড্রাইভিং লাইসেন্স পেন্ডিং। প্রাতিষ্ঠানিক সীমাবদ্ধতার কারণে সহসাই সে সমস্যার উত্তরণ হচ্ছে না। আবার ফিটনেসবিহীন যানবাহনকে ধরতে আদালতের নির্দেশনা এবং নতুন আইনে জরিমানা ও শাস্তি বেড়ে যাওয়ায় বিআরটিএ কার্যালয়ে ভিড় বেড়েছে অনেক বেশি।

সম্প্রতি বিআরটিএ ঢাকা মেট্রোর মিরপুর কার্যালয় সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, কার্যালয়ের সামনে বিভিন্ন পরিবহনের দীর্ঘ লাইন। কার্যালয়ের ভেতরে হাজারেরও বেশি মোটরসাইকেল পার্ক করা। কেউ নতুন ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য, আবার কেউ নবায়ন করতে এসেছেন। বিআরটিএ কার্যালয়ের ভেতরে এনআরবি ব্যাংক শাখায় সেবাগ্রহীতাদের উপচেপড়া ভিড় দেখা গেছে। দীর্ঘলাইনে ঘণ্টাব্যাপী অপেক্ষায় থেকে টাকা জমা দিচ্ছেন যান মালিকরা। অনেকের আবার গাড়ির কাগজপত্র হলেও হয়নি স্মার্ট নম্বরপ্লেট। সেখানে সব সেবাই মিলছে, তবে চাহিদার তুলনায় সেবার গতি কম।

আদালত কর্তৃক ফিটনেস নবায়নে সময় বেঁধে দেয়ার পর গত ২৩ অক্টোবর বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) এ-সংক্রান্ত প্রতিবেদন আদালতে উপস্থাপন করে। প্রায় পাঁচ লাখ গাড়ির মধ্যে হাইকোর্টের বেঁধে দেয়া দুই মাস সময়ের মধ্যে শুধুমাত্র ৮৯ হাজার ২৬৯টি গাড়ির ফিটনেস নবায়ন করা সম্ভব হয়েছে বলে আদালতে প্রতিবেদন উপস্থাপন করে বিআরটিএ।

বাংলাদেশ ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান পণ্য পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সদস্য সচিব মো. তাজুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা সহজে লাইসেন্স পাই না। ভারী পরিবহনের চালকদের দেয়া হয় লাইট লাইসেন্স। সেই লাইসেন্স নিয়ে রাস্তায় গেলে মামলা দেয় খোদ বিআরটিএ ও ট্রাফিক পুলিশ। আমরা সহজ শর্তে এবং স্বল্প সময়ের মধ্যে ড্রাইভিং লাইসেন্স পেতে চাই।

এ ব্যাপারে বিআরটিএ পরিচালক (এনফোর্সমেন্ট) এ কে এম মাসুদুর রহমান বলেন, পেশাদার ভারী ড্রাইভিং লাইসেন্সপ্রাপ্তির জন্য প্রার্থীকে প্রথমে হালকা ড্রাইভিং লাইসেন্স নিতে হবে। এর ন্যূনতম তিন বছর পর তিনি পেশাদার মিডিয়াম ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য আবেদন করতে পারবেন। মিডিয়াম ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়ার ক্ষেত্রে কমপক্ষে তিন বছর পর ভারী ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য আবেদন করতে পারবেন। কিন্তু এসব না বুঝে অনেকেই প্রশ্ন তুলছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

three × 4 =