Templates by BIGtheme NET
২৭ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ১৩ রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরী
Home » বিবিধ » যেসব কারণে রোগ সারাতে পারছে না অ্যান্টিবায়োটিক

যেসব কারণে রোগ সারাতে পারছে না অ্যান্টিবায়োটিক

প্রকাশের সময়: নভেম্বর ৩০, ২০১৯, ১:২০ অপরাহ্ণ

প্রেসক্রিপশন ছাড়া ঘন ঘন অ্যান্টিবায়োটিক সেবন, কোর্স শেষ না করে মাঝপথে অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়া বন্ধ করাসহ নানা কারণে মানুষের শরীরের অ্যান্টিবায়োটিক কার্যকারিতা হারাচ্ছে। প্রচলিত অ্যান্টিবায়োটিকের মধ্যে প্রায় ১৭টির কার্যক্ষমতা অনেকাংশে কমে গেছে। এসব অ্যান্টিবায়োটিক মূলত মূত্রনালির সংক্রমণ, নিউমোনিয়া ও জখম সারানোসহ নানা ধরনের সংক্রমণের চিকিৎসায় ব্যবহার করা হতো।

গবেষকেরা বলছেন, এ কারণে শিশু ও হাসপাতালের আইসিইউতে (নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র) চিকিৎসাধীন রোগীরা মারাত্মক ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। সম্প্রতি রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) এক গবেষণায় এসব তথ্য উঠে এসেছে। আইইডিসিআরের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের প্রধান ডা. জাকির হোসাইন হাবিব দেশের ৯টি মেডিকেল কলেজের রোগীদের ওপর গবেষণা চালিয়ে এসব তথ্য পেয়েছেন।

গবেষণায় তিনি দেখেছেন, দেশে গত কয়েক দশক অ্যান্টিবায়োটিকের বিরুদ্ধে ব্যাকটেরিয়ার প্রতিরোধী হয়ে ওঠেছে। অ্যান্টিবায়োটিকের কার্যক্ষমতা কমে যাওয়ায় রোগীদের ওপর প্রচলিত নয় এমন অ্যান্টিবায়োটিকের প্রয়োগ বেড়ে গেছে। ডা. হাবিব জানান, জীবাণুর মধ্যে ক্ষত সংক্রমণ জীবাণু প্রায় ৫৭ শতাংশ সক্রিয় ছিল। অর্থাৎ এগুলো প্রচলিত ওষুধ দিয়ে সারানো সম্ভব হচ্ছিল না।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগ নিয়ন্ত্রণ বিভাগের পরিচালক অধ্যাপক সানিয়া তাহমিনা বলেন, বাংলাদেশে অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ বিক্রির ক্ষেত্রে কোনো নীতিমালা নেই। কিছু নির্দেশনা থাকলেও সেগুলো ক্রেতা বা বিক্রেতা কেউই মানে না। মানুষের সঙ্গে সঙ্গে প্রাণীর ওপরেও অ্যান্টিবায়োটিক এবং ক্ষেতে খামারে কিটনাশক ব্যবহার হওয়ায় শাক-সবজি, ফল বা মাছ, মাংসের মাধ্যমে প্রতিনিয়তই আমাদের শরীরে অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্টান্ট হয়ে যাচ্ছে।

গবেষণায় দেখা গেছে, প্রেসক্রিপশন ছাড়া ঘন ঘন অ্যান্টিবায়োটিক সেবন, কোর্স শেষ না করে মাঝপথে অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়া বন্ধ করা, প্রয়োজনের তুলনায় স্বল্প ডোজের অ্যান্টিবায়োটিক, ভাইরাসজনিত কোনো অসুখে, অর্থাৎ যেসব ক্ষেত্রে একটি নির্দিষ্ট সময় পরে এমনি সেরে যেত সেখানে, বিশেষ করে শিশুদের অ্যান্টিবায়োটিক দিলে তা আর কাজ করে না।

অ্যান্টিবায়োটিক রোগ সারাতে না পারার পরিস্থিতির ভয়াবহতা সম্পর্কে ডা. হাবিব বলেন, বাংলাদেশে বহু মানুষ, বিশেষ করে নিম্ন আয়ের মানুষ চিকিৎসকের স্মরণাপন্ন না হয়ে ফার্মেসিতে গিয়ে অ্যান্টিবায়োটিক কিনে সেবন করে। তাদের মধ্যে ধারণাই নেই যে এর ফলে তার শরীর অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্টান্ট হয়ে যাচ্ছে এবং পরবর্তীতে কোনো সংক্রমণ হলে সেটা আর কোনো ওষুধে সারবে না।

ঢাকার আহসানিয়া মিশন জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. মাসুমা নাওয়ার বলেন, শিশুদের ক্ষেত্রে প্রথমত পরিবার থেকে যদি নিশ্চিত করা যায় যে বিনা প্রেসক্রিপশনে অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়া যাবে না। দ্বিতীয়ত ডোজ শেষ করতে হবে, মানে অসুখ একটু প্রশমন হলেই ওষুধ খাওয়া বন্ধ করা যাবে না। তাহলে এ সমস্যার একটি সমাধান হতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

5 + 1 =