Templates by BIGtheme NET
৩০ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ১৬ রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরী
Home » বিশেষ সংবাদ » উত্তরায় গাড়িমুক্ত সড়ক
অভিনব উদ্যোগে প্রশংসিত ডিএনসিসি

উত্তরায় গাড়িমুক্ত সড়ক
অভিনব উদ্যোগে প্রশংসিত ডিএনসিসি

প্রকাশের সময়: নভেম্বর ২২, ২০১৯, ১:৫২ অপরাহ্ণ

নিজস্ব খবর: উত্তরার ১১ নম্বর সেক্টর, সোনারগাঁও জনপথ সড়ক। প্রতিদিনের মতো ব্যস্ততম এ সড়কে চলছে না কোনো গাড়ি। ‘প্রতি শুক্রবার’ সড়কটিতে গাড়ি মুক্ত ঘোষণা করায় সর্বমহলে প্রশংসিত ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)।

অন্য দিনগুলোতে এ সড়কে ভিড় থাকলেও ২২ নভেম্বর সকালের চিত্রটি ছিল একেবারেই ভিন্ন। এ দিন সড়কে নেই কর্মস্থলে ছুটে চলা মানুষের ভিড়, সেই সঙ্গে নেই কোনো বাস, প্রাইভেট কার, রিকশাসহ অন্য যানবাহন।

দেখা যায়, প্রতিদিনের ব্যস্ত এ সড়কে কেউ কেউ খেলছে ফুটবল, কেউবা ক্রিকেট। অন্য শিশুরা ব্যস্ত ক্যারাম, দাবা খেলতে। ছোট বাচ্চারা ব্যস্ত দৌড়-ঝাঁপ, বাস্কেটবল, স্ক্রেটিং আর সাইক্লিং করতে। এখানে শিশুদের খেলাধুলা জন্য বসানো হয়েছে নানা উপকরণ।

প্রতি শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত সেক্টর ১১ এর ২/এ নম্বর সড়ক থেকে চৌরাস্তা পর্যন্ত গাড়ি মুক্ত থাকবে।

ডিএনসিসি জানিয়েছে, সে সময়ে এ সড়কে স্থানীয়রা স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে ওয়াকিং, সাইক্লিং, স্কেটিং, ঘুড়ি ওড়ানো, নৃত্য, গান, ছবি আঁকা, আড্ডা, বই পড়াসহ বিভিন্ন কর্মকাণ্ড পরিচালনা করতে পারবেন। প্রতি শুক্রবার উত্তরার এ এলাকায় গাড়িমুক্ত সড়ক কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন ডিএনসিসির মেয়র আতিকুল ইসলাম।

উত্তর পরশমনি ল্যাবরেটরি স্কুলের চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী সায়মন এসেছে বাবা মার সঙ্গে। অন্য শিশুদের সঙ্গে সে ব্যস্ত সড়কে ফুটবল খেলতে। তার বাবা বেসরকারি চাকরিজীবী সাজ্জাত হোসেন বলেন, ঢাকার শিশুরা চার দেয়ালে বন্দি থাকে সব সময়। উন্মুক্ত পরিবেশে খেলাধুলার কোন সুযোগ পায় না। শুক্রবার একদিন হলেও এমন উন্মুক্ত পরিবেশে শিশু কিশোরদের খেলাধুলার সুযোগ করে দিয়েছে ডিএনসিসি। উদ্যোগটা সত্যিই প্রশংসনীয়।

উদ্বোধনের পর মেয়র আতিকুল ইসলাম পুরো গাড়িমুক্ত সড়ক ঘুরে শিশুদের সঙ্গে বিভিন্ন খেলায় অংশ নেন। পাশাপাশি শিশু এবং স্থানীয়রা ডিএনসিসির এ পদক্ষেপে মেয়রকে ধন্যবাদ জানান।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ২২ সেপ্টেম্বর মাসের প্রথম ‘শুক্রবার’ রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউয়ে সড়কে গাড়ি মুক্ত ঘোষণা করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

four × one =