Templates by BIGtheme NET
২৬ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ১০ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ১২ রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরী
Home » জাতীয় » খাদ্যের অভাবের চেয়ে রাজনৈতিক কারণে দুর্ভিক্ষ বেশি হয়

খাদ্যের অভাবের চেয়ে রাজনৈতিক কারণে দুর্ভিক্ষ বেশি হয়

প্রকাশের সময়: নভেম্বর ১৯, ২০১৯, ২:৩৮ অপরাহ্ণ

গত শতাব্দীতে বিশ্বের ৭ কোটি মানুষ দুর্ভিক্ষের কারণে মৃত্যুবরণ করেছেন। বর্তমান পৃথিবীতেও প্রায় ২ কোটিরও বেশি মানুষ দুর্ভিক্ষের শিকার! তার মানে এই নয় বিশ্বে খাদ্য ঘাটতি রয়েছে বরং বেশিরভাগ দুর্ভিক্ষের পেছনেই রয়েছে রাজনীতি।

১৯৪৩ সালে বাংলাদেশে একটি দুর্ভিক্ষ হয়। এর কারণ ছিলো মুলত দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ। এ সময় জাপানি সেনাবাহিনীর হাতে বার্মার পতন হলে সেখান থেকে চাল আমদানি বন্ধ হয়ে যায়। আর এই সুযোগটি নেয় অতিরিক্ত মুনাফাভোগীরা। এই দুয়ে মিলে সেই দুর্ভিক্ষে ৩৫ লাখ মানুষ মৃত্যুবরন করে।

১৯৭৪ সালে সদ্য স্বাধীনতাপ্রাপ্ত বাংলাদেশে দুর্ভিক্ষ দেখা দেয়। সে সময়ে কয়েক লক্ষ মানুষ অনাহারে মারা যায়। এই দুর্ভিক্ষের পেছনে মুক্তিযুদ্ধের সময়কার প্রভাব থাকলেও মূলত মার্কিন চক্রান্তে দুর্ভিক্ষ মহামারি আকার ধারণ করে। সে সময় কিউবার কাছে পাট বিক্রির অভিযোগে দেখিয়ে নগদ টাকায় কেনা খাদ্যও সরবরাহ বন্ধ করে দেয় যুক্তরাষ্ট্র। একই সঙ্গে খাদ্য সহযোগীতার জন্য ঋণও বাতিল করা হয়। জানা গেছে, মার্কিন খাদ্যবাহী জাহাজ তখন বঙ্গপোসাগর থেকে ফেরত গিয়েছিলো। সেই চালানে অন্তত আড়াই মাসের খাদ্য শষ্য ছিলো।

এছাড়া সাম্প্রতিক কালের দুটি বড় দুর্ভিক্ষ হলো সোমালিয়া ও ইথিওপিয়ার দুর্ভিক্ষ। ১৯৭৭ সালের জুলাই থেকে ১৯৭৮ সালের মার্চ পর্যন্ত ওগাদেন অঞ্চল নিয়ে যুদ্ধে লিপ্ত হয় দুটি দেশ। এখানে সোভিয়েত ইউনিয়ন ইথিওপিয়াকে সমর্থন করতে শুরু করে, অন্যদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সোমালিয়াকে সহায়তা করে। এই পুরো সময়টাতেই তাদের খাদ্য উৎপাদন ব্যহত হয়। উল্লেখ্য, এই যুদ্ধের সময় খাদ্য চলাচলের রুট গুলো অন্য দেশের নিয়ন্ত্রণে থাকায় উভয় দেশই এটিকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করে এবং চরম খাদ্য সংকট সৃষ্টি হয়।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, যদি কোন দুর্যোগের কারণে খাদ্য সংকট সৃষ্টি হয়, সেটা সম্মিলিতভাবে মোকাবেলা করা সম্ভভ। কিন্তু ইতিহাস ঘেটে দেখা গেছে, এই সংকটগুলোতেই মধ্যস্বত্ব ভোগী থেকে আন্তর্জাতিক শক্তিগুলো তৎপর হয়ে ওঠে। এতে দুর্ভিক্ষ আরো ত্বরান্মিত হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

1 × two =