Templates by BIGtheme NET
৩০ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ১৬ রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরী
Home » বিজ্ঞান- প্রযুক্তি » কে বড় বিজ্ঞানী : স্টিফেন হকিং না জামাল নজরুল ইসলাম?

কে বড় বিজ্ঞানী : স্টিফেন হকিং না জামাল নজরুল ইসলাম?

প্রকাশের সময়: নভেম্বর ১৫, ২০১৯, ৮:২৯ অপরাহ্ণ

স্টিফেন হকিংকে এ যুগের শ্রেষ্ট বিজ্ঞানী বলা হয়। বিশ্বের বিজ্ঞানীরা তাকে হকিং না বলে ‘স্টিফেন কিং বলেও সম্বোধন করেন। নিঃসন্দেহে তিনি একজন বড় বিজ্ঞানী। তবে হকিংয়ের সমকক্ষ আরেকজন বিজ্ঞানী ছিলেন। যিনি জন্মেছিলেন বাংলাদেশে। আর এ দেশে জন্মেছিলেন বলেই হয়তো জামাল নজরুল ইসলাম নামটি আমাদের কাছে পরিচিত নয়।

কেন তিনি হকিং এর সমকক্ষ?

জামাল নজরুল ইসলাম বিজ্ঞানীদের কাছে জে এন ইসলাম নামে পরিচিত। ক্যাম্ব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ে তিনি হকিংয়ের রুমমেট, বন্ধু এবং সহকর্মী ছিলেন। তারা একসঙ্গে বসে দীর্ঘদিন গবেষনা করেছেন। হকিং এর বহু সফলতায় জামাল নজরুলের সহযোগীতা রয়েছে। ১৯৬০ থেকে ১৯৮০ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত হকিং যেসব বিজ্ঞানীদের নিয়ে গবেষণা করেছেন, তাদের মধ্যে জেএন ইসলাম অন্যতম। তার সম্পর্কে হকিং বলেছিলেন, ‘জেএন ইসলাম ও আমি ছিলাম পরস্পর পরস্পরের শিক্ষক।

তবে জামাল অনেক ক্ষেত্রে হকিংয়ের চেয়েও এগিয়ে ছিলেন। যেমন ক্যাম্ব্রিজের ট্রিনিটি থেকে গণিতে ট্রাইপস পাস করতে তিন বছর সময় লাগে। জেএন ইসলাম তা দুই বছরে শেষ করেছিলেন। বাংলা একাডেমি থেকে প্রকাশিত জামাল নজরুল ইসলামের লেখা ‘কৃষ্ণবিবর’ গ্রন্থটি হকিংয়ের ব্ল্যাকহোল থিউরির অনেক আগেই প্রাচ্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ানো হয়েছে। এছাড়া জেএন ইসলামের ‘দি আল্টিমেট ফেইট অফ দি ইউনিভার্স’লেখা হয়েছে ১৯৮৩ খ্রিস্টাব্দে কিন্তু হকিংয়ের ‘অ্যা ব্রিফ হিস্টরি অব টাইম’ লেখা হয়েছে ১৯৮৮ খ্রিস্টাব্দে।

জাপানি প্রফেসর মাসাহিতো ‘বিজ্ঞানী জয়ন্ত নারলিকা, ফ্রেডরিক হয়েল, নোবেল বিজয়ী বিজ্ঞানী ব্রায়ান জোসেফসন, স্টিফেন হকিং, প্রফেসর আব্দুস সালাম, রিচার্ড ফাইনমেন, অমর্ত্য সেন প্রমুখ ছিলেন জে এন ইসলামের ঘনিষ্ঠ বন্ধু। তার বহুবার বলেছেন, দুটি গ্রন্থ তুলনা করলে নিঃসন্দেহে জেএন ইসলামের বইটি যে কোনো বিবেচনায় শ্রেষ্ঠ।

কেম্ব্রিজের শিক্ষক প্রফেসর সুসানার ভাষায়, ‘বিজ্ঞানময়তা বিবেচনায় হকিংয়ের অ্যা ব্রিফ হিস্টরি অব টাইম-এর চেয়ে অনেক গুণ কার্যকর এবং বিজ্ঞানানুগ হচ্ছে জেএন ইসলামের দি আল্টিমেট ফেইট অফ দি ইউনিভার্স।

জামাল নজরুল ইসলাম ১৯৩৯ খ্রিস্টাব্দের ২৪ ফেব্রুয়ারি ঝিনাইদহ শহরে জন্মগ্রহণ করেন। চট্টগ্রামের কলেজিয়েট স্কুলে ভর্তি পরীক্ষায় এত ভালো করেছিলেন যে, শিক্ষকৃবন্দ তাকে ডাবল প্রমোশন দিয়েছিলেন। তিনি কম্পিউটার ও ক্যালকুলেটর ছাড়াই তিনি বড়ো বড়ো হিসাব মুহূর্তে করে দিতেন।

জামাল নজরুল ইসলাম ছিলেন আপাদমস্তক দেশপ্রেমিক। ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দে ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রীর কাছে চিঠি লিখে বাংলাদেশে পাকিস্তানি বাহিনীর আক্রমণ বন্ধের উদ্যোগ নিতে বলেছিলেন। বিদেশে লোভনীয় চাকরি ছেড়ে তিনি দেশে চলে এসেছিলেন মাত্র তিন হাজার টাকার চাকরি নিয়ে। দেশের জন্য কিছু করার উদ্দেশে মুহম্মদ জাফর ইকবাল দেশে ফেরার পরামর্শ দিয়েছিলেন।

২০১৩ খ্রিস্টাব্দের ১৬ মার্চ তিনি ইন্তেকাল করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

nineteen − 18 =