Templates by BIGtheme NET
২৯ কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ১৩ নভেম্বর, ২০১৯ ইং , ১৪ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী
Home » বিশেষ সংবাদ » না ফেরার দেশে খোকা : যা বললেন প্রধানমন্ত্রী

না ফেরার দেশে খোকা : যা বললেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশের সময়: নভেম্বর ৪, ২০১৯, ৪:২৩ অপরাহ্ণ

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও অবিভক্ত ঢাকার সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকা ইন্তেকাল করেছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৮ বছর।

সোমবার (৪ অক্টোবর) বাংলাদেশ সময় দুপুর ১টা ৫০ মিনিটের দিকে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের ম্যানহাটন স্লোয়ান ক্যাটারিং ক্যানসার সেন্টারে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। বিএনপির চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং সদস্য শায়রুল কবির খান এ তথ্য জানান।

জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন সাদেক হোসেন খোকা। সম্প্রতি তার শারীরিক অবস্থার ব্যাপক অবনতি হলে হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্রে উচ্চমাত্রার অক্সিজেন দিয়ে রাখা হয়েছিল তাকে।

এদিকে বাবার জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছিলেন সাদেক হোসেন খোকার ছেলে ইশরাক হোসেন। শুধু তাই নয়, তিনি জানিয়েছেন তার বাবার শেষ ইচ্ছার কথাও।

সাদেক হোসেন খোকার শেষ ইচ্ছে হচ্ছে, দেশের মাটিতে জীবনের শেষ নিঃশ্বাসটুকু নিতে না পারলেও মৃত্যুর পর যেন তাকে তার বাবা-মায়ের কবরের পাশে দাফন করা হয়।

এমন ইচ্ছে শুনে গত ৩ নভেম্বর খোকার শারীরিক অবস্থার খোঁজ নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পাশাপাশি খোকার চিকিৎসাজনিত সকল দায়িত্ব নেয়ার কথাও জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি এও বলেন, যদি কোনো অঘটন ঘটে থাকে তাহলে খোকার শেষ ইচ্ছানুযায়ী বাংলাদেশে সমাহিত করার সকল ব্যবস্থা করা হবে। আর সে বিষয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদেরকে নির্দেশও দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রীর এমন নির্দেশের পরই সাদেক হোসেন খোকার পরিবারকে দেশে আসার উপায়ও জানিয়েছিলেন, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ শাহরিয়ার আলম। ফেসবুকে তিনি লিখেন, খোকার পরিবার ‘ট্রাভেল পারমিট’ এর জন্য আবেদন করলে আমাদের মিশন প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

খোকার মৃত্যুতে সবকিছু থমকে গেলেও প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে তার পরিবার যেন তার লাশ নিয়ে দ্রুত দেশে ফিরতে পারেন সে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এখন দেখার বিষয় কবে নাগাদ তার মরদেহ দেশে এসে পৌঁছায়।

উল্লেখ্য, সাদেক হোসেন খোকা একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। বিএনপি করলেও আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তার ভালো সম্পর্ক ছিল। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা যখন দেশ পরিচালনায় আসেন তখন ঢাকার মেয়র ছিলেন সাদেক হোসেন খোকা। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী তাকে সেই পদ থেকে অপসারণ করেননি। বরং দীর্ঘ ২ বছর তাকে মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালনের সুযোগ দিয়েছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

sixteen − eight =