Templates by BIGtheme NET
৭ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ২১ নভেম্বর, ২০১৯ ইং , ২৩ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী
Home » বিবিধ » ফেসবুকের ফ্রেন্ড লিস্টে যারা আছেন তারা কি ধরণের ফ্রেন্ড?

ফেসবুকের ফ্রেন্ড লিস্টে যারা আছেন তারা কি ধরণের ফ্রেন্ড?

প্রকাশের সময়: অক্টোবর ১৮, ২০১৯, ১০:১০ অপরাহ্ণ

এ জেড ভূঁইয়া আনাস:

ফেসবুকের কোন এক্টিভ মেম্বারকে যদি জিজ্ঞেস করা হয় একজন মানুষের কতজন বন্ধু থাকতে পারে? হয়তো বলবে- ‘আমার তো ফ্রেন্ডলিস্টে ৫০০ জন বন্ধু আছে। প্রশ্ন উঠতে পারে, তারা আসলে কি রকম বন্ধু? তাদের সঙ্গে বন্ধুত্বের গভীরতা কতটুকু?

মনোবিজ্ঞানীদের মতে, কোন পরিকল্পনা ছাড়াই যখন দুজন ব্যক্তি অন্তত আধাঘণ্টা বসে গল্প করতে পারেন তখন বুঝতে হবে তাদের বন্ধুত্বের সম্পর্ক রয়েছে। প্রশ্ন হলো, তাহলে একজন মানুষ আসলে কয়জন বন্ধু রাখতে পারে?

ব্রিটিশ নৃতত্ত্ববিদ রবিন ডানবার এর মতে একজন মানুষ সর্বোচ্চ ১৫০ ব্যক্তির সাথে অর্থবহ সম্পর্ক তৈরি করতে পারে। অর্থবহ বলতে তিনি বুঝিয়েছেন, যেখানে দুজন মানুষ একে অপরকে চিনবে, তাদের মধ্যে পারস্পরিক বোঝাপড়া থাকবে, তারা পরস্পরের গুণ ও বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে অবগত থাকবে।

১৯৯২ সালে একটি অনুচ্ছেদে ডানবার উল্লেখ করেন, ১৫০ জন মানুষ এমন হবে, যাদের সাথে আপনার হঠাৎ করে দেখা হয়ে গেলে, বিনা আমন্ত্রণেই তাদের সাথে বসে রেস্টুরেন্টে খাওয়ার সময় আপনি অস্বস্তিতে ভুগবেন না।

ডানবারের গবেষণা দেখা যায়, একজন মানুষ মূলত খুব বেশি অন্তরঙ্গ সম্পর্ক গড়ে তুলতে পারে মাত্র পাঁচজনের সাথে। এই পাঁচজন হলো তার সবচেয়ে আপনজন, ভালোবাসার মানুষ। এই পাঁচজনের সাথে সে যেকোনো সুখ-দুঃখ ভাগ করে নিতে পারে, তাদেরকে যেকোনো গোপন কথা বলতে পারে। এছাড়া ১৫ জন থাকে তার ভালো বন্ধু, ৫০ জন বন্ধু, ১৫০ জন অর্থবহ পরিচিত, ৫০০ জন জানাশোনা, এবং ১৫০০ জন যাদের সে দেখা হলে স্রেফ চিনতে পারে।

ডানবার তত্ত্বটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের যুগেও প্রাসঙ্গিক কি না, তা যাচাই করে তিনি বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের যুগেও তার তত্ত্বটি সমান প্রাসঙ্গিক রয়েছে।
তার যুক্তি হলো, ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রাম প্রভৃতির কল্যাণে হয়তো মুহূর্তেই প্রচুর মানুষের সাথে যোগাযোগ ও সম্পর্ক স্থাপন সম্ভব হচ্ছে। কিন্তু তাদের সাথে আন্তঃব্যক্তিক যোগাযোগে খুব বেশি উন্নয়ন ঘটছে না। মানুষ আগের চেয়েও অনেক বেশি ব্যস্ত হয়ে গেছে। তাই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে কাজে লাগিয়েও তারা প্রকৃত অর্থবহ সম্পর্ক সৃষ্টি করতে পারছে না। ফেসবুকে হয়তো অনেকের হাজার হাজার বন্ধু, টুইটারে আরো বেশি ফলোয়ার, কিন্তু দিনশেষে অর্থবহ ও গভীর সম্পর্ক সৃষ্টি হয় হাতেগোনা অল্প কিছু মানুষের সাথেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

17 + 4 =