Templates by BIGtheme NET
৭ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ২১ নভেম্বর, ২০১৯ ইং , ২৩ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী
Home » জাতীয় » মোবাইল টাওয়ার অপসারণে হাইকোর্টের ১১ নির্দেশনা

মোবাইল টাওয়ার অপসারণে হাইকোর্টের ১১ নির্দেশনা

প্রকাশের সময়: অক্টোবর ১৭, ২০১৯, ৫:৩৯ অপরাহ্ণ

মোবাইল ফোন টাওয়ারের উচ্চমাত্রার রেডিয়েশন বিকিরণ স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। এ কারণে সব স্পর্শকাতর স্থান থেকে টাওয়ার দ্রুত সরিয়ে ফেলার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। ঘন জনবসতিপূর্ণ এলাকা, হাসপাতাল, স্কুল ও কলেজকে স্পর্শকাতর স্থান বিবেচনা করে ১১ দফা নির্দেশনা দিয়েছেন আদালত।

এক, বিকিরণের মাত্রা নির্ধারিত মাত্রার ১/১০ ভাগে কমিয়ে আনতে হবে।

দুই, বাসার ছাদ, স্কুল-কলেজ, হাসপাতাল, ক্লিনিক, কারাগার, খেলার মাঠ, জনবসতি এলাকা, হেরিটেজ ও প্রত্নতাত্ত্বিক স্থানে টাওয়ার না বসানো এবং বসানো টাওয়ারগুলো অপসারণ করা।

তিন, বিকিরণের মাত্রা সহনীয় মাত্রায় রাখতে অতিরিক্ত নিরাপত্তামূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করা।

চার, টাওয়ার বসাতে জমি অধিগ্রহণে কোনও বাধা আছে কিনা বা বিকল্প পদ্ধতি গ্রহণ করা।

পাঁচ, বিকিরণের মাত্রা বিটিআরসি ও লাইসেন্সি দুপক্ষকেই স্বাধীনভাবে আইটিইউ এবং আইইসি এর মান অনুসারে পরিমাপ করা।

ছয়, কোনোও টাওয়ারের বিকিরণের মাত্রা অতিরিক্ত হলে তা অপসারণ করে নতুন টাওয়ার বসানো।

সাত, টাওয়ার ভেরিফিকেশন মনিটর পরীক্ষার ক্ষেত্রে বিটিআরসির দায়-দায়িত্ব হবে বাধ্যতামূলক।

আট, বিটিআরসি স্বাস্থ্য ঝুঁকি নিয়ন্ত্রণে মনিটরিং সেল গঠন করবে।

নয়, যে কোনো বিষয়ে বিরোধ হলে বিটিআরসি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিটি গঠন করবে। লাইসেন্সিকে প্রতি ছয় মাসে অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল করতে হবে।

দশ, মোবাইল সেটে দৃশ্যমানভাবে এসএআর মান লিখতে হবে।

এগারো, সংশ্লিষ্ট লাইসেন্সি প্রতিটি রিপোর্ট বা রেকর্ড পাঁচ বছর পর্যন্ত পর্যবেক্ষণ করবে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আদালতের আদেশ ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন সম্পর্কে আরও গবেষণা করে রিপোর্ট দিতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

2 × three =