Templates by BIGtheme NET
৯ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ২৩ নভেম্বর, ২০১৯ ইং , ২৫ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী
Home » সারাদেশ » চালক ছাড়াই ঈশ্বরদী থেকে ট্রেন রাজশাহীতে!

চালক ছাড়াই ঈশ্বরদী থেকে ট্রেন রাজশাহীতে!

প্রকাশের সময়: অক্টোবর ১৪, ২০১৯, ১০:০৬ অপরাহ্ণ

পাবনা প্রতিনিধি
চালক ছাড়াই ঈশ্বরদী থেকে রাজশাহী গেছে পাবনা এক্সপ্রেস ট্রেন। চাঞ্চল্যকর এ ঘটনায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে পুরো পশ্চিম রেলজুড়ে। এ ঘটনায় দায়ী তিনজনকে তাৎক্ষণিকভাবে সাসপেন্ড করেছে রেলওয়ের পাকশী বিভাগীয় কর্তৃপক্ষ। এ ছাড়া সোমবার এ ঘটনায় পাকশী রেলওয়ে বিভাগ ৩ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। রোববার চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটি ঘটেছে পাবনার ঈশ্বরদীতে।

যাদের সাসপেন্ড করা হয়েছে তারা হলেন ঈশ্বরদী রেলওয়ে শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পাবনা এক্সপ্রেস ট্রেনের চালক লোকোমাস্টার (এলএম) আসলাম উদ্দিন খান মিলন, শ্রমিক লীগের একই কমিটির যুগ্ম-সম্পাদক ও ওই ট্রেনের সহকারী লোকোমাস্টার (এএলএম) আহসান উদ্দিন আশা এবং ট্রেনের পরিচালক (গার্ড) আনোয়ার হোসেন-২।

রেলওয়ে সূত্র জানায়, পাবনা এক্সপ্রেস ট্রেনের চালক আসলাম উদ্দিন খান মিলন শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক হওয়ায় তিনি নিজে ট্রেনে না উঠে তার সহকারী আহসান উদ্দিন আশাকে দিয়ে রোববার ট্রেনটি ঈশ্বরদী থেকে পাবনা হয়ে রাজশাহী পাঠান। এ ঘটনাটি ট্রেনের গার্ড জানলেও তিনি রেল কর্তৃপক্ষের কাউকে না জানিয়ে সহকারী এলএমকে নিয়ে ট্রেনটি পরিচালনা করেছেন।

পশ্চিম রেলের পাকশী বিভাগীয় ম্যানেজার আহসান উদ্দিন ভূঁইয়া ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এ খবর জানার পর বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা (ডিটিও) আবদুল্লাহ আল-মামুন ট্রেনের গার্ডকে এবং বিভাগীয় যান্ত্রিক প্রকৌশলী (ডিএমই লোকো) আশিষ কুমার চক্রবর্তী চালক ও সহকারী চালককে সাসপেন্ড করার নির্দেশ দেন।

এ ছাড়া সহকারী নির্বাহী প্রকৌশলী, সহকারী যান্ত্রিক প্রকৌশলী ও পরিবহন কর্মকর্তার সমন্বয়ে ৩ সদস্যের একটি তদন্ত টিম গঠন করা হয়েছে। তদন্ত টিমকে সোমবার থেকে ৩ কার্য দিবসের মধ্যে তদন্ত রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে।

পাকশী বিভাগীয় রেলের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, ট্রেন সময়মতো না ছাড়লেও একজন পূর্ণাঙ্গ চালক (এলএম) ছাড়া কোনো ট্রেন চালানোর সুযোগ রেলওয়েতে নেই। কিন্তু রোববার পাবনা এক্সপ্রেস ট্রেন চালক ছাড়া রাজশাহীতে পৌঁছার পর রেলের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বিষয়টি জানতে পেরে তাৎক্ষণিকভাবে পাবনা এক্সপ্রেস ট্রেন থেকে এ তিনজনকে অব্যাহতি দিয়ে অন্য চালক ও গার্ডকে দিয়ে ফিরতি ট্রেন পাঠান ঈশ্বরদীতে। ফিরতি ট্রেনের যাত্রীরা এ ঘটনা শুনে আতঙ্কিত ও বিস্ময় প্রকাশ করেন।

রেলওয়ে সূত্র জানায়, পাবনা এক্সপ্রেস ট্রেন ঈশ্বরদী রেলওয়ে জংশন স্টেশন থেকে প্রতিদিন মাঝগ্রাম জংশন, দাশুড়িয়া, টেবুনিয়া স্টেশন হয়ে প্রথমে পাবনা স্টেশনে যায়। পাবনা থেকে ঈশ্বরদী বাইপাস স্টেশন হয়ে রাজশাহী যায়। ফিরতি সময়ে রাজশাহী স্টেশন থেকে পাবনা হয়ে ঈশ্বরদী জংশন স্টেশনে ফিরে আসে ট্রেনটি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে রেল সূত্র জানায়, এই নিয়ম না মেনে প্রায়ই এই ট্রেনের চালক ও রেল শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক আসলাম উদ্দিন খান মিলন বাইপাস স্টেশন থেকে ট্রেনে ওঠেন। আবার মাঝে মধ্যেই তিনি তার সহকারীকে দিয়ে ট্রেন রাজশাহীতে পাঠিয়ে থাকেন।

পাবনা স্টেশনের মাস্টার মাহবুবুল হাসান জানান, পাবনা থেকে যখন ট্রেনটি ছাড়ে তখন চালক ও গার্ড ছিলেন। ঈশ্বরদী বাইপাশ থেকে ঘটনা ঘটেছে কিনা-সেটা আমি জানি না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

16 − one =