Templates by BIGtheme NET
১ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ১৫ নভেম্বর, ২০১৯ ইং , ১৭ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী
Home » অর্থনীতি » বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদন
জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে ভারতকে ছাড়িয়ে যাবে বাংলাদেশ
প্রবৃদ্ধিতে ভারতকে ছাড়িয়ে যাবে বাংলাদেশ

বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদন
জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে ভারতকে ছাড়িয়ে যাবে বাংলাদেশ

প্রকাশের সময়: অক্টোবর ১৩, ২০১৯, ৯:০৩ অপরাহ্ণ

নিজস্ব সংবাদ:  বাংলাদেশ জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে এবার ভারতকে ছাড়িয়ে যাবে বলে সম্প্রতি বিশ্বব্যাংকের প্রকাশিত সর্বশেষ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। এছাড়া নেপালের চেয়েও ভারতের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি কম হবে বলে পূর্বাভাস দেয়া হয়েছে ওই প্রতিবেদনে।

বিশ্বব্যাংক তার সর্বশেষ প্রতিবেদনে জানিয়েছে, দক্ষিণ এশিয়ায় প্রবৃদ্ধি ২০১৯ সালের এপ্রিলের অনুমানের তুলনায় ১ দশমিক ১ পয়েন্ট কমে ৫ দশমিক ৯ পয়েন্টে নেমে যাবে। এছাড়া চলতি অর্থবছরে অর্থনৈতিকভাবে অস্থিতিশীল পাকিস্তানের প্রবৃদ্ধি ২ দশমিক ৪ শতাংশ কমে যাবে।

সাউথ এশিয়া ইকোনোমিক ফোকাস নামের সর্বশেষ ওই প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, এই অঞ্চলে অতীতে অভ্যন্তরীণ চাহিদা প্রতিনিয়ত বাড়তে থাকলেও এখন তা কমতে শুরু করেছে। যার কারণে দক্ষিণ এশিয়ার অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি কম হওয়ার এই প্রবণতা তৈরি হয়েছে।

ভারতের অভ্যন্তরীণ চাহিদা হ্রাস পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মানুষের ব্যক্তিগত খরচ গত প্রান্তিকে ৩ দশমিক ১ শতাংশ বেড়েছে। গত বছর যেটা ছিল ৭ দশমিক ৩ শতাংশ। এদিকে চলতি বছরের দ্বিতীয় পাক্ষিকে গত বছরের ১০ শতাংশের তুলনায় উৎপাদন প্রবৃদ্ধি ১ শতাংশ কমেছে।

চলতি অর্থবছরে ভারতের প্রবৃদ্ধি কমে দাঁড়াবে ৬ শতাংশে। তবে ২০২১ সালে তার কিছুটা উন্নতি হয়ে ৬ দশমিক ৯ শতাংশ এবং ২০২২ সালে তা ৭ দশমিক ২ শতাংশ হবে বলে পূর্বাভাস দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক। যা বাংলাদেশের তুলনায় অনেক কম।

বিশ্বব্যাংক পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, চলতি অর্থবছরে বাংলাদেশের প্রকৃত মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি ৮ দশমিক ১ শতাংশ ধরা হয়েছে। গত অর্থবছরে যা ছিল ৭ দশমিক ৯ শতাংশ। তবে ২০২০ সালে দেশটির প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ২ শতাংশ এবং ২০২১ সালে ৭ দশমিক ৩ শতাংশ হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের প্রধান অর্থনীতিবিদ হ্যানস টাইমার বলছেন, যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে চলমান বাণিজ্য যুদ্ধের কারণে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক শিল্পখাত ব্যাপক লাভবান হয়েছে। ফলে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধির বেশ উন্নতি ঘটেছে। তিনি বলেন, ‘সাধারণভাবে আমরা বিভিন্ন তথ্য উপাত্তের মাধ্যমে দেখতে পাচ্ছি বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার অন্যান্য দেশগুলোর তুলনায় বেশ ভালো করছে। বিশেষ করে ভারত, শ্রীলঙ্কা এবং পাকিস্তানের চেয়ে। বাংলাদেশের শিল্প পণ্য উৎপাদন এবং তাদের রফতানি বিশ্লেষণ করে আমরা তা দেখতে পাচ্ছি।

অর্থনীতিবিদ ড. আবু আহমেদ বলছেন, ধারাবাহিক প্রবৃদ্ধি ও দারিদ্র্য নিরসনে বাংলাদেশের অর্জন অনেক। তবে টেকসই প্রবৃদ্ধির জন্য আর্থিক চলমান সংস্কার কার্যক্রম ত্বরান্বিত করা, খেলাপি ঋণ কমিয়ে আনা, রাজস্ব আয় বাড়াতে কর নীতির সংস্কার, সরকারি বিনিয়োগের মানসম্মত ব্যবস্থাপনা, ইজ অব ডুয়িং বিজনেসে উন্নয়ন ও মানব সম্পদের উন্নয়নে বিনিয়োগ নিশ্চিত করতে হবে আমাদের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

nineteen + 2 =