Templates by BIGtheme NET
১ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ১৫ নভেম্বর, ২০১৯ ইং , ১৭ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী
Home » রাজধানী » ডিএনসিসি ২৪নং ওয়ার্ড: সড়কে ২৫ রাজনৈতিক কার্যালয়

ডিএনসিসি ২৪নং ওয়ার্ড: সড়কে ২৫ রাজনৈতিক কার্যালয়

প্রকাশের সময়: অক্টোবর ১৩, ২০১৯, ৯:২৪ পূর্বাহ্ণ

তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল এলাকায় সড়ক ও ফুটপাতে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) ২৪ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের প্রায় ২৫টি রাজনৈতিক কার্যালয় গড়ে তোলা হয়েছে। এসব কার্যালয়ের পাশাপাশি সড়কে গড়ে উঠেছে রিকশা গ্যারেজ, চায়ের দোকান ও ভাঙারির দোকানসহ বিভিন্ন স্থাপনা।

জানা যায়, সড়কে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা এসব দোকানপাট ও স্থাপনা থেকে ভাড়া (চাঁদা) আদায় করেন বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা। রয়েছে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ। সড়কে দীর্ঘদিন ধরে এসব কার্যালয় থাকলেও উচ্ছেদে কোনো ভূমিকা নেই সিটি কর্পোরেশনের।

তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল এলাকার প্রধান সড়কসহ প্রায় প্রতিটি রাস্তায় এক থেকে দু’টি রাজনৈতিক কার্যালয় রয়েছে। অন্যদিকে এসব কার্যালয়ের পাশাপাশি পুরো সড়ক ও ফুটপাতে রয়েছে চায়ের দোকান, খাবার হোটেল, রিকশার গ্যারেজসহ নানা স্থাপনা।

বাবলি মোড়, বলাকা মোড়, নাবিস্কো বটতলা মোড়, রোলিং মোড়, প্রগতির মোড়, বিএসটিআই মোড়, উত্তর বেগুনবাড়ি সিদ্দিক মাস্টার মোড়, মধ্য বেগুনবাড়ি, দিপিকা মোড়সহ আরও কয়েকটি সড়কে এসব রাজনৈতিক কার্যালয় রয়েছে। ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরা কার্যালয়ের পার্শ্ববর্তী রাস্তায় আরও একাধিক স্থাপনা গড়ে তুলছেন।

এসব কার্যালয়ের বেশির ভাগই ইট সিমেন্ট দিয়ে স্থায়ীভাবে করা হয়েছে। দেখা যায়, বাবলির মোড়ে ২৪ নং ওয়ার্ডের ৫ নং ইউনিট আওয়ামী লীগের কার্যালয়, পাশের সড়ক বলাকার মোড়ে রয়েছে ১২ নং ইউনিট বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগ, ১২ নং কৃষক লীগ ও ৬ নং যুবলীগের কার্যালয়।

রোলিং মিল রোডে রয়েছে ৫ নং ইউনিট যুবলীগের কার্যালয়। এ কার্যালয়ের পার্শ্ববর্তী রয়েছে বেশ কিছু অবৈধ স্থাপনা।

অভিযোগ রয়েছে, রোলিং মিল ও বলাকার মোড়ের ফুটপাত ও সড়কে অবৈধ স্থাপনায় বিদ্যুৎ সংযোগ দেন ৫ নং ইউনিট যুবলীগের সভাপতি মো. খোকন। জানতে চাইলে খোকন বলেন, সরকারের যদি ফুটপাত দরকার হয়।

তাহলে আমরা সড়ক ও ফুটপাত থেকে রাজনৈতিক কার্যালয় সরিয়ে নেব। এ এলাকায় দীর্ঘদিন বসবাস করি। তাই এখানে কিছু করে খাই। আর ফুটপাত শুধু আমি দখল করিনি। আরও অনেকেই দখল করে ব্যবসা করছেন।

নাবিস্কো বটতলা মোড়ে দেখা যায়, ৫ নং ইউনিট স্বেচ্ছাসেবক লীগের কার্যালয়। এ দুটি কার্যালয়ই আধাপাকা। যা দীর্ঘদিন স্থায়ী কার্যালয় হিসেবে রয়েছে। সড়কে অবৈধ কার্যালয় স্থাপন সম্পর্কে জানতে চাইলে ২৪ নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও ৫ নং ইউনিট স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মনির হোসেন মোল্লা বিষয়টি এরিয়ে যান।

অন্যদিকে নাবিস্কোর পশ্চিম পাশে ফুটপাত ও সড়কে রয়েছে আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের দুটি কার্যালয়। প্রগতির মোড়ে রয়েছে ১২ নং ইউনিট সৈনিক লীগের কার্যালয়।

এসব কার্যালয়ের রাস্তার দুই পাশে রয়েছে রিকশার গ্যারেজ ও মোটর ম্যাকানিকের দোকান। প্রগতি রোডে সড়ক ও জনপদ মোড়ে রয়েছে ৬ নং ওয়ার্ড যুবলীগের কার্যালয়।

এদিকে কলোনি বাজার (হকার্স মাকেট) খালি অংশে গড়ে তোলা হয়েছে ২৪ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের প্রধান কার্যালয়। কেন্দ্রীয় মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রের সামনে সড়কের একাংশ দখল করে গড়ে উঠেছে শিল্পাঞ্চল থানা মহিলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়।

একটু সামনে পদ্মা পলিকটন সড়কে রয়েছে পেশাজীবী লীগ, ৯ নং ইউনিট স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও তাঁতীলীগের প্রধান কার্যালয়। অন্য দিকে বিএসটিআই মোড়ে রয়েছে জাতীয় শ্রমিক লীগের প্রধান কার্যালয়।

এ ছাড়াও এ কার্যালয়ের পাশে রয়েছে একটি খাবার হোটেল ও রিকশার গ্যারেজ। রাস্তা দখল করে রাজনৈতিক কার্যালয় থাকার বিষয়ে ২৪ নং ওয়ার্ড শ্রমিক লীগের সভাপতি মো. হাবিবুর রহমান বলেন, সড়ক ও ফুটপাত দখল আজ থেকে নয়। এটা ’৭১-এর পর থেকেই হয়ে আসছে।

তাছাড়া এ এলাকায় আগে দিনের বেলায় ছিনতাই হতো। এখানে কিছু কিছু দোকানপাট থাকায় এখন আর ছিনতাই হয় না। এখন দেশ ডিজিটাল হচ্ছে। সড়কে কোনো দোকানপাট থাকবে না। আমাদের যখন নির্দেশ দেয়া হবে।

আমরা এসব কার্যালয় সরিয়ে নেব। উত্তর বেগুনবাড়ি সিদ্দিক মাস্টার সড়কের মোড়ে দেখা যায় ১০ নং ইউনিট আওয়ামী লীগ ও শিল্পাঞ্চল থানা ছাত্রলীগের প্রধান কার্যালয় রয়েছে।

এ ছাড়াও মধ্য বেগুনবাড়ি পোস্ট অফিস বটতলা মোড়ে ১৫ নং ইউনিট আওয়ামী লীগের কার্যালয় ও দীপিকা মোড়ে ১৪ নং ইউনিট আওয়ামী লীগের কার্যালয় রয়েছে।

অন্য দিকে শহীদ তাজউদ্দীন সড়কের পশ্চিম পাশে বিজি প্রেস স্কুলের সামনে রয়েছে ২নং ইউনিট আওয়ামী-লীগ, তিব্বত আলকাট্টা সড়কে ১ নং ইউনিট আওয়ামী লীগ ও ইমপাল্স হসপিটাল রোডে ১ নং যুবলীগের কার্যালয়। এসব কার্যালয় ফুটপাত ও সড়কের একাংশ দখল করে গড়ে তোলা হয়েছে।

তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ২৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সফিউল্লাহ সফি বলেন, শিগগির রাস্তার ওপর থাকা সব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হবে। এরপর যাতে আর দখল না হয় সেজন্য প্রত্যেক এলাকায় একটি করে কমিটি করে দেয়া হবে।

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের অঞ্চল-৩ এর নির্বাহী কর্মকর্তা মীর নাহিদ আহসান বলেন, নগর ভবন থেকে আমাদের একটি তালিকা দেয়া হয়েছে। সে তালিকা অনুযায়ী আমরা আগামী সপ্তাহে উচ্ছেদে যাব।

রাজনৈতিক কার্যালয় বা অন্য কোনো কার্যালয় বিষয় না, সিটি কর্পোরেশনের রাস্তায় যত স্থাপনা থাকবে সব কিছুই উচ্ছেদ করা হবে। যান চলাচল ও পথচারী চলাচলেরর সুবিধার্থে আমরা ফুটপাত ও সড়কের সব অবৈধ স্থাপনাই উচ্ছেদ করব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

four × 3 =