Templates by BIGtheme NET
২ কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ১৭ অক্টোবর, ২০১৯ ইং , ১৬ সফর, ১৪৪১ হিজরী
Home » আন্তর্জাতিক » বিশ্বের সেরা ৫ ক্যাসিনো

বিশ্বের সেরা ৫ ক্যাসিনো

প্রকাশের সময়: সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৯, ২:৫৩ অপরাহ্ণ

বর্তমানে দেশের সবচেয়ে আলোচিত শব্দ ক্যাসিনো। বিশ্বে এর ইতিহাস অনেক পুরোনো হলেও বাংলাদেশে যুবলীগ নেতা খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে গ্রেপ্তারের পর সামনে আসে ক্যাসিনো ব্যবসার কথা। দেশে এই ব্যবসা চলমান রয়েছে একথা এর আগে অনেকেই জানতেন না। চলুন দেখে আসা যাক, ক্যাসিনো কি ও বিশ্বের সেরা ৫ ক্যাসিনোর ইতিহাস।

ক্যাসিনো হচ্ছে বিভিন্ন ধরণের জুয়া খেলার একটি নির্দিষ্ট স্থান যাকে বাংলায় জুয়ার আড্ডা বা আসর বলা যায়। কিন্তু সেটা হয় সুবিশাল পরিসরে। সাধারণত ক্যাসিনো এমনভাবে বানানো হয়, এর পাশাপাশি হোটেল, রেস্টুরেন্ট, শপিংমল, আনন্দভ্রমণ জাহাজ এবং অন্যান্য পর্যটন আকর্ষণ থাকে৷ কিছু কিছু ক্যাসিনোয় সরাসরি বিনোদন প্রদান যেমন স্ট্যান্ড আপ কমেডি, কনসার্ট, খেলাধুলা ইত্যাদির ব্যবস্থা থাকে।

সান সিটি রিসোর্ট
বিশ্বের সেরা ৫টি ক্যাসিনোর মধ্যে সান সিটি রিসোর্ট অন্যতম। জোহানেসবার্গ থেকে মাত্র দুই কিলোমিটার দূরে ইলান্দ নদী তীরে এটি অবস্থিত। যা ক্যাসিনো হিসেবে যাত্রা করে ১৯৭৯ সালে বর্ণবাদবিরোধী আন্দোলনের সময়। ব্যবসায়ী সোল কার্জনার এর প্রতিষ্ঠা করেন। যুক্তরাষ্ট্রে সাংস্কৃতিক নিষেধাজ্ঞার পরিপ্রেক্ষিতে এর হাতেখড়ি।

ফক্সউডস রিসোর্ট ক্যাসিনো
ফক্সউড ক্যাসিনোর প্রতিষ্ঠা ১৯৮৬ সালে। এতে দুটি হোটেল টাওয়ার রয়েছে। প্রত্যেক টাওয়ারে ২ হাজার ২৬৬টি কক্ষ। যুক্তরাষ্ট্রের কানেক্টিকাটের এই ক্যাসিনোটি বিশ্বজোড়া সমাদৃত। হলিউডের বহু সেলিব্রেটি অভিনেতা তাদের বন্ধু-বান্ধবের সঙ্গে সেখানে যান। সারারাত জুয়া খেলার পাশাপাশি এখানে চলে জমজমাট আড্ডা। চারপাশে সবুজের গালিচায় মোড়ানো প্রাকৃতিক মনোমুগ্ধকর পরিবেশে বেষ্টিত এই ক্যাসিনোর গেমিং জোনটি গড়ে উঠেছে ৩ লাখ ৫০ হাজার বর্গফুটের বিশাল এলাকাজুড়ে। ৪ হাজার ৭০০টি স্লট মেশিন ও ৩৮০টিরও বেশি জুয়ার টেবিলে প্রতিদিন চলে ব্ল্যাকজ্যাক, রুলেট, জুজু ইত্যাদি মজার মজার খেলা।

ক্যাসিনো ডি মন্টিকার্লো
১৮৬৩ সালে প্রিন্সেস ক্যারোলিন এর প্রতিষ্ঠা করেন। মধ্যযুগীয় ইউরোপীয় স্থাপত্য রীতি এবং চোখ ধাঁধানো সজ্জার ক্যাসিনো ডি মন্টিকার্লো জুয়ার জগতের এক বিস্ময়কর নাম। এটাকে এককথায় জুয়ার প্রাসাদ বলা যায়। ইউরোপের বিখ্যাত ক্যাসিনোর মধ্যে মোনাকোর মন্টি কার্লো ক্যাসিনো অন্যতম। প্রতিদিন এখানে বিলিয়ন ডলারের গ্যাম্বলিং হয়। মোনাকো সরকার ও ক্ষমতাসীন রাজ পরিবার কর্তৃক এটি পরিচালিত হয়।

সিজার্স প্যালেস
সিজার্স প্যালেস নাম হলেও রোমান সম্রাট জুলিয়াস সিজারের সঙ্গে এর কোনো সম্পর্ক নেই। রোমান স্থাপত্য রীতি আর মার্বেলের কলামে তৈরি বিলাসবহুল কমপ্লেক্সটি মূলত এর প্যাঁচানো লিফট আর ১ লাখ ৫০ হাজার বর্গফুটের ক্যাসিনো ফ্লোরের জন্য বিখ্যাত। নানা ধরনের টেবিল গেম, অসংখ্য পোকার ও স্লট ম্যাশিন এটাকে যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম শ্রেষ্ঠ ক্যাসিনোতে পরিচিত করেছে। এটি ১৯৬৬ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বলে জানা যায়।

ক্যাসিনো ব্যাডেন ব্যাডেন
জার্মানির ব্ল্যাক ফরেস্টের একপ্রান্তে এটি অবস্থিত। ১৭০০ সালের দিকে রোমানরা এটাকে চিকিৎসালয় হিসেবে প্রতিষ্ঠা করে। কিন্তু ১৭৪৮ সালে এখানে প্রথম জুয়া শুরু হয়। ১৮৩৮ সালে যার ক্যাসিনোতে রূপান্তর ঘটে। উনিশ শতকের প্রথম দশকে ফ্রান্সে যখন জুয়া সাময়িক নিষিদ্ধ করা হয়, ব্যাডেন ব্যাডেনের খ্যাতি তখন চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। হিটলারের দেশের ব্ল্যাক ফরেস্ট অঞ্চলের এই ক্যাসিনোতে রয়েছে অভিজাত সব পোকার কক্ষ, ব্ল্যাকজ্যাক ও জুয়ার টেবিল। সেই সঙ্গে রয়েছে ১৩০ স্লট ম্যাশিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

9 + eleven =