Templates by BIGtheme NET
১ কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ১৬ অক্টোবর, ২০১৯ ইং , ১৬ সফর, ১৪৪১ হিজরী
Home » জাতীয় » হারিয়ে যাওয়া ল্যাপটপ দিয়েই রোহিঙ্গাদের এনআইডি হচ্ছে, সন্দেহ দুদকের!

হারিয়ে যাওয়া ল্যাপটপ দিয়েই রোহিঙ্গাদের এনআইডি হচ্ছে, সন্দেহ দুদকের!

প্রকাশের সময়: সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৯, ৯:৫০ অপরাহ্ণ

২০১৫ সাল থেকেই চট্টগ্রাম জেলা নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ের ভোটার তালিকা হালনাগাতের কাজে ব্যবহৃত কয়েকটি ল্যাপটপের হদিস পাওয়া যাচ্ছে না। হারিয়ে যাওয়া এইসব ল্যাপটপ দিয়েই রোহিঙ্গাদের জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরি করা হয়েছে বলে সন্দেহ দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদকের। দুদক সমন্বিত কার্যালয় চট্টগ্রাম-২ এর সহকারী পরিচালক রতন কুমার দাশ সম্প্রতি গণমাধ্যমের কাছে এমন সন্দেহ প্রকাশ করেন।

রতন কুমার দাশ বলেন, ২০১৫ সালের পর থেকে এই ল্যাপটপগুলোর কোনও হদিস নেই। আমরা ধারণা করছি, ল্যাপটপগুলো ব্যবহার করে রোহিঙ্গারা এনআইডি সংগ্রহ করেছে। খোঁজ না পাওয়া ল্যাপটপগুলো উদ্ধারের জন্য নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত কোনও জিডিও করা হয়নি। হারিয়ে যাওয়ার পরপরই ল্যাপটপগুলোর লাইসেন্স বাতিল করা উচিত ছিল।

তবে নির্বাচন কর্মকর্তারা বলছেন, ল্যাপটপগুলো হারিয়ে যাওয়ার পর জিডি করা হয়েছে। কিন্তু অনেকদিন আগের ঘটনা হওয়া জিডির কাগজগুলো খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। এছাড়া ঠিক কতটি ল্যাপটপ হারানো গেছে এ বিষয়েও কিছু জানাতে পারেননি চট্টগ্রাম জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মুনীর হোসাইন। তিনি বলেন, এটি অনেক আগের ঘটনা। ঠিক কয়টা ল্যাপটপ হারানো গেছে, এটি আমরা নিশ্চিত নই। তিন থেকে চারটা হবে। এগুলো হারিয়ে যাওয়ার পর জিডি করা হয়েছে, তবে অনেক আগের বিষয় হওয়ায় এখন জিডির কাগজও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

দুদক সমন্বিত কার্যালয় চট্টগ্রাম-২ এর অভিযোগ, নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ের কর্মী এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের যোগসাজশে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশের জাতীয় পারিচয়পত্র পাচ্ছে। প্রাথমিক তদন্তে এমন তথ্য পাওয়া গেছে। কারণ এনআইডির তথ্যগুলো লাইসেন্স করা কম্পিউটার ছাড়া আপলোড করা সম্ভব নয়।

রোহিঙ্গাদের এনআইডি সংগ্রহের বিষয়ে দুদক কর্মকর্তা রতন কুমার দাশ বলেন, আমরা ১৫ সেপ্টেম্বর দ্বিতীয় দফায় নির্বাচন কমিশনের চট্টগ্রাম আঞ্চলিক কার্যালয়ে গিয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে কথা বলেছি। তারা জানিয়েছেন, এই পর্যন্ত ৪৬টি এনআইডি শনাক্ত করেছেন। নির্বাচন কমিশন কার্যালয় থেকে ৪৬ জনের কথা বললেও আমরা ধারণা করছি, ১০০ জনের মতো রোহিঙ্গা এনআইডি সংগ্রহ করে থাকতে পারে। এছাড়া পাসপোর্ট অফিস এখন পর্যন্ত ৫৪ রোহিঙ্গাকে সনাক্ত করতে পেরেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

12 − one =