Templates by BIGtheme NET
৮ আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং , ২২ মুহাররম, ১৪৪১ হিজরী
Home » বিশেষ সংবাদ » শোভন-রাব্বানীর নেতৃত্বাধীন ছাত্রলীগের কমিটি ভাঙা নিয়ে ধুম্রজাল

শোভন-রাব্বানীর নেতৃত্বাধীন ছাত্রলীগের কমিটি ভাঙা নিয়ে ধুম্রজাল

প্রকাশের সময়: সেপ্টেম্বর ৯, ২০১৯, ১২:৪৯ অপরাহ্ণ

গত কয়েকদিন ধরে গণমাধ্যম ও রাজনৈতিক মহলে যে বিষয়টি নিয়ে সবচেয়ে বেশি আলোচনা হচ্ছে তা হচ্ছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ প্রসঙ্গ। জানা গেছে, সম্প্রতি ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি অভিযোগ উঠেছে। তারমধ্যে রয়েছে বিতর্কিতদের কেন্দ্রীয় কমিটিতে জায়গা দেওয়া, দুপুরের আগে ঘুম থেকে না ওঠা, নিয়মিত মধুর কেন্টিনে উপস্থিত না হওয়া, সামাজিক-অর্থনৈতিক নানাবিধ অনৈতিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে সম্পৃক্ততা ইত্যাদি।

জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে ৭ সেপ্টেম্বর রাতে আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার ও সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ডের যৌথসভা অনুষ্ঠিত হয়। গণমাধ্যম মারফত জানা গেছে, ওই সভায় আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা ছাত্রলীগের শীর্ষ দুই নেতার কর্মকাণ্ডে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। শুধু তাই নয়, তাদের বিরুদ্ধে ওঠা নানান অভিযোগে ক্ষুব্ধ হয়ে সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কমিটি ভেঙে দিতেও বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। যদিও আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের দায়িত্বশীল কোনো সূত্র এ বিষয়টি নিয়ে মুখ খুলছেন না।

এদিকে, শোভন-রাব্বানীর নেতৃত্বাধীন ছাত্রলীগের কমিটি ভাঙা নিয়ে ক্রমেই ধুম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে রাজনৈতিক মহলে। সংগঠনটির একাধিক নেতাকর্মীরা বলছেন, যেহেতু প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন, সেহেতু ছাত্রলীগের কমিটি ভাঙা এখন সময়ের অপেক্ষা মাত্র। আবার অনেকে বলছেন, শুধু কমিটি ভাঙাই নয়, বিতর্কিত এই শীর্ষ দুই নেতার বিরুদ্ধেও ব্যাবস্থা নিবে আওয়ামী লীগ। তবে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশের বিষয়টি খোলাসা করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

৮ সেপ্টেম্বর সচিবালয়ে বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলারের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাত শেষে ওবায়দুল কাদের বলেন, ছাত্রলীগের কমিটি ভেঙে দেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্তের বিষয়টি সত্য নয়।

তিনি বলেন, রংপুরের উপনির্বাচন ছাড়াও ২২টি ইউনিয়ন পরিষদ, তিনটি পৌরসভা, সাতটি উপজেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে আলোচনার জন্য আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার ও সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ডের সদস্যরা আলোচনা করেছিলেন। সেখানে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি ভেঙে দেওয়ার বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

ছাত্রলীগের কর্মকাণ্ড নিয়ে প্রধানমন্ত্রী ক্ষুব্ধ কী-না, এ প্রসঙ্গে কাদের বলেন, ছাত্রলীগের বিচ্ছিন্ন-বিক্ষিপ্ত কিছু কিছু ব্যাপার আছে, সেগুলো নিয়ে প্রধানমন্ত্রী কনসার্ন থাকতেই পারেন, এটা খুব স্বাভাবিক। কিন্তু এখানে কোনো স্পেসিফিক সিদ্ধান্ত হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

3 × 5 =