Templates by BIGtheme NET
৮ আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং , ২২ মুহাররম, ১৪৪১ হিজরী
Home » জাতীয় » যেভাবে আপনার চারপাশে রয়েছে অসংখ্য গোয়েন্দা (ভিডিও)

যেভাবে আপনার চারপাশে রয়েছে অসংখ্য গোয়েন্দা (ভিডিও)

প্রকাশের সময়: সেপ্টেম্বর ৯, ২০১৯, ১২:২৪ অপরাহ্ণ

তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে আপনার ব্যক্তিজীবনের কোনকিছুই যে গোপন থাকছে না সেটা এখন ওপেন সিক্রেট। ফেসবুক ট্যুইটারে আপনি কিছু লিখছেন বা লাইক দিচ্ছেন আর সেটা দেখে আপনার মন বিশ্লেষন হয়ে যাচ্ছে। ম্যাসেঞ্জারে গোপন কথা বলেছিলেন সেগুলোও হ্যাক হয়ে যাচ্ছে। সব দেখেশুনে বিরক্ত হয়ে আপনি হয়তো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে মুখ ফিরিয়ে নিলেন। বন্ধ করে দিলেন সব একাউন্ট। কিন্তু তাতেও কোন লাভ হবে না। কারণ, এগুলা যারা নিয়ন্ত্রণ করছেন তাদের হতে আছে অত্যাধুনিক মেশিন লারনিং সফটওয়্যার।

মেশিন লারনিং ল্যাঙ্গুয়েজ নতুন কিছু না। তবে এর নতুনতর ব্যবহার সম্পর্কে সবাই সচেতন নয়। গ্রাহাম বেল যখন টেলিফোন আবিস্কার করেছিলেন, চার্লস ব্যাবেজ যখন কম্পিউটার আবিস্কার করেছিলেন, তখন মেশিন লারনিং ল্যাঙ্গুয়েজ দিয়েই এসব করেছিলেন। কিন্তু আর্টিফিসিয়াল ইন্টিলিজেন্সের এই যুগে সেই ল্যাঙ্গুয়েজটি যে ভয়াবহ গোয়েন্দা বাহিনীতে পরিনত হয়েছে, তা হয়তো আমরা জানি না।

আপনি হয়তো ভাবছেন আপনি ফেসবুকে এ্যাকটিভ না। কিন্তু ইন্টিলিজেন্ট প্রোগ্রামাররা যে কোনও সময় আপনার হাতের স্মার্ট ফোনের রিসিভার চালু করে শুনে নিতে পরে সেসব কথা, যা বলার সময় ফোনটি আপনার ঘরের কোন ডেস্কে ছিলো। হয়তো আপনার মোবাইল বন্ধ ছিলো, তাতে কিছু আসে-যায়না ইন্টিলিজেন্ট প্রোগ্রামারদের। আপনার অজান্তেই স্পীকার চালু হয়ে সব কথা চলে যাবে জায়গামত। একইভাবে আপনার মোবাইলের নির্দোষ ক্যামেরাটিও চালু হয়ে গেলে কি দৃশ্য যে ধারণ হয়ে যেতে পারে তা হয়তো আপনি কল্পনাই করেন নি।

সমস্যা এখানেই শেষ নয়। ট্রান্সফরমার সিনেমার মতো আপনার ড্রইং রুমের টিভিটা হয়ে যেতে পারে একটি ভুতুরে যন্ত্র। বিজ্ঞানীরা বলছেন, মানুষের মনে প্যানিক অনুভূতি সৃষ্টি করার জন্য খুব বেশি যন্ত্র লাগে না। টিভির স্পিকার থেকে বের হওয়া শ্রুতিপূর্ব কোন শব্দই আপনাকে ভীত করে দিতে পারে। আপনার মনে অহেতুক ভয় সৃষ্টি করতে পারে। মানসিকভাবে দুর্বল করে দিতে পারে।

ধরুণ দেশে এখন যুদ্ধ চলছে। আর আপনাকে যুদ্ধে নামার জন্য ট্রেনিং নিতে বলছে সেনাবাহিনী। কিন্তু টেলিভিশনের একটি স্পীকার আপনার মানসিক অবস্থা এমন করে দিয়েছে, যে আপনাকে দিয়ে আর যুদ্ধ সম্ভব না। আপনি যথেষ্ট সচেতন থাকলেও উপরের ঘটনাগুলো ঘটতে পারে। আর যদি সচেতন না থাকেন, তাহলে তো কথাই নেই। প্রশ্ন উঠতে পারে, এসব থেকে মুক্তি উপায় কি? উত্তর হলো এর থেকে কোন মুক্তি নেই।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

nine − two =