Templates by BIGtheme NET
২ পৌষ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ১৮ রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরী
Home » জাতীয় » বাংলাদেশকে বিপদে ফেলে দিলেন যে নারী

বাংলাদেশকে বিপদে ফেলে দিলেন যে নারী

প্রকাশের সময়: জুলাই ১৯, ২০১৯, ৬:৫২ অপরাহ্ণ

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অদ্ভুত একটি নালিশ করেছেন হিন্দু সম্প্রদায়ের এক নারী। জানা গেছে, বুধবার ১৭ জুলাই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প নিজের ওভাল অফিসে বিভিন্ন দেশে ধর্মের নামে নিপীড়নের শিকার হওয়া লোকজনের সঙ্গে কথা বলেন। এই দলে বাংলাদেশের হিন্দু সম্প্রদায়ের পক্ষে ছিলেন প্রিয়া সাহা নামের এক নারী।

তিনি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কাছে অভিযোগ করে বলেন, আমি বাংলাদেশ থেকে এসেছি। সেখানে প্রায় ৩ কোটি ৭০ লাখ হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান নিখোঁজ রয়েছেন। দয়া করে আমাদের সাহায্য করুন। ওই নারী আরও বলেন, এখনও সেখানে ১ কোটি ৮০ লাখ সংখ্যালঘু রয়েছে। সেখানে আমি আমার ঘরবাড়ি হারিয়েছি। তারা আমার ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দিয়েছে। তারা আমার জমিজমাও দখল করে নিয়েছে। কিন্তু এর কোন বিচার হয়নি।

ওই নারীর এমন বক্তব্যের পর ট্রাম্প বলেন, কারা জমি দখল করেছে, কারা ঘরবাড়ি দখল করেছে? তখন ওই নারী বলেন, মুসলিম মৌলবাদী সংগঠন। তারা সবসময় রাজনৈতিক আশ্রয় পায়। সবসময়।

এদিকে গণমাধ্যমে এই সংবাদ প্রচারের পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তীব্র সমালোচনার ঝড় উঠেছে। শিক্ষক, সাংবাদিক থেকে শুরু করে সমাজের বিভিন্ন শ্রেনি পেশার মানুষ নানা মন্তব্য করছেন।

সাংবাদিক সুশান্ত দাস গুপ্ত বলেছেন, এই নারীর কি এমন হয়েছিলো যে ট্রাম্প পর্যন্ত যেতে হলো? তিনি কি প্রধানমন্ত্রীর কাছে যেতে পারেন নি। আমি মনে করি তিনি দেশের বিরুদ্ধে বিরাট একটি ষড়যন্ত্র করছেন।

বর্ষীয়ান সাংবাদিক আমিনুল ইসলাম লিখেছেন, এমন নালিশের সঙ্গে বাস্তবতার কোন মিল নেই। বাংলাদেশে ৩ কোটি ৭০ লাখ হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান নিখোঁজ রয়েছেন এমন ঘটনা সত্য হতে পারে না বরং এদেশে হিন্দু, মুসলিম, খ্রিষ্টানসহ সব ধর্মের মানুষের মধ্যে যথেষ্ট সম্প্রীতি রয়েছে। এখানে সব ধর্মের মানুষ মিলেমিশে বসবাস করেন।

বিশ্লেষকরা বলছেন, এই ঘটনার পর একসঙ্গে অনেকগুলো ঝামেলা দেশে তৈরী হয়ে গেল। প্রথমত এদেশের সাধারণ মুসলিম যারা অন্য ধর্মালম্বীদের সঙ্গে সম্প্রীতির সম্পর্ক বজায় রাখেন তাদের মনে অবিশ্বাস তৈরী হলো। একইসঙ্গে এই ঘটনাকে পুজি করে মৌলবাদীদের আস্ফলনের একটি সুযোগ সৃষ্টি হলো। ফলে আপামর হিন্দু সম্প্রদায়। যারা সুখে শান্তিতে বসবাস করছিলেন তাদেরও নিরাপত্তা বিঘ্নিত হলো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

20 + 16 =