Templates by BIGtheme NET
২৭ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ১২ রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরী
Home » বিজ্ঞান- প্রযুক্তি » নেটদুনিয়ার অবৈধ স্বর্গ রাজ্য ডার্কনেট! (পর্ব-৩ ভিডিওসহ)

নেটদুনিয়ার অবৈধ স্বর্গ রাজ্য ডার্কনেট! (পর্ব-৩ ভিডিওসহ)

প্রকাশের সময়: জুলাই ১২, ২০১৯, ৩:২৪ অপরাহ্ণ

মোহাম্মাদ এনামুল হক এনা: আমরা ১ম পর্ব ও দ্বিতীয় পর্বে আমরা ডার্ক নেট সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। এখানে সংক্ষেপে ডার্ক নেট সম্পর্কে একটু বলে নেই। ইন্টারনেট হচ্ছে এক বিশাল তথ্যের ভাণ্ডার। আমরা ইন্টারনেটে সার্চ দিয়ে যত তথ্য পাই তা হচ্ছে ইন্টারনেট এর মোট তথ্যের ১ % মাত্র। তথ্যের বিশাল অংশ থাকে আমাদের ধরা ছোঁয়ার বাইরে। ইন্টারনেটের এই অংশটাকে বলা হয় ডিপ ওয়েবে। এখানে থাকে সরকারের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য , বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ডাটাবেস, গোয়েন্দা সংস্থার তথ্য ইত্যাদি।

ডিপ ওয়েবের নিচে একটি ছোট অংশ আছে। তাকে বলা হয় ডার্ক ওয়েব। আর এখানে সকল অপরাধী, হ্যাকার,গোপন সোসাইটি , মাদক ব্যবসায়ী, অসুস্থ মানসিকতার মানুষদের বিচরণ। এখানে এমন সব অবৈধ কাজ হয় যা সাধারণ মানুষের চিন্তার ও বাইরে। যাইহোক এগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত আমরা ২য় পর্ব ও প্রথম পর্বে আলোচনা করেছি।

আজকে আমরা ৩য় পর্বে আলোচনা করব ডার্ক নেটের একটি গোপন ওয়েব সাইট সম্পর্কে। যার নাম হচ্ছে সিল্ক রোড। বলা হয় এটা ডার্ক নেটের সবচেয়ে শক্তিশালী ওয়েবসাইটগুলোর একটা ।

আমরা সবাই ইতিহাসের বইতে সিল্ক রোড সম্পর্কে পড়েছি। রেশম কাপড় আমদানি রপ্তানিতে ব্যবহার করা হত এই রাস্তা। তবে আজকে আমরা যে সিল্ক রোড নিয়ে আলোচনা করব সেটা হচ্ছে ডার্ক নেটের একটা ওয়েব সাইটের নাম । এটি একটি অনলাইন মার্কেটিং ওয়েবসাইট। সিল্ক রোড নামের এই সাইটটি কুখ্যাত মাদক, নেশা জাতীয় দ্রব্য , নিষিদ্ধ রাসায়নিক দ্রব্য ক্রয়- বিক্রয়ের জন্য। মাদক ক্রয়-বিক্রয় ছাড়াও অবৈধ অস্ত্র বিক্রয়, জাল আইডি কার্ড, পাসপোর্ট তৈরি এবং হ্যাকিং সার্ভিসও প্রদান করে এই ওয়েব সাইটটি ।

এই ওয়েবসাইটটির ডিজাইন খুবই আকর্ষণীয়। এই সাইট টিতে ব্যবহার কারীরা Rank এবং রিভিউ করতে পারে, ফলে নতুন ব্যবহার কারী সহজেই তাদের পছন্দের মাদকটি খুঁজে বের করতে পারে। নতুন ব্যবহারকারীদের প্রথমে এখানে রেজিস্টার করতে হয়। নতুন একাউন্ট রেজিস্টার করতে একটা নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা দিতে হয়। ইউজারদের আইডি এখানে গোপন রাখা হয়। আর যেহেতু বিট কয়েন এর মাধ্যমে লেনদেন হয়, সেজন্য ক্রেতা ও বিক্রেতার পরিচয় সম্পূর্ণ রূপে গোপন থাকে। বিট কয়েন হচ্ছে একধরনের ইন্টারনেট ভিত্তিক মুদ্রা। এতে সরকারের কোন নিয়ন্ত্রণ থাকে না এবং এর লেনদেন সম্পর্কেও সরকারের কাছে কোন তথ্য থাকে না। এজন্য বিট কয়েনের মাধ্যমে যে কোন অবৈধ লেনদেন খুব সহজেই করা যায়।

এছাড়া এই সাইটের মাধ্যমে যারা মাদক বিক্রি করে তাদেরকেও টাকা দিয়ে একাউন্ট খুলতে হয় । তবে টাকা থাকলেই এখানে একাউন্ট খোলা যায় না। একাউন্ট নিলামের মাধ্যমে বিক্রি করা হয় এবং যে নিলামে একাউন্ট জেতে সেই এই সাইটে মাদক বিক্রি করার অনুমতি পায়। এমন বিক্রেতাদেরই নির্বাচন করা হয় যারা নিয়মিত এবং বেশি পরিমাণ মাদক ও অন্যান্য নিষিদ্ধ দ্রব্য সরবরাহ করতে পারে। এসকল নির্বাচিত বিক্রেতাদের প্রতি মাসে নির্দিষ্ট পরিমাণ ফি ও দিতে হয়। মজার বিষয় হচ্ছে এদের একটি বুক ক্লাবও রয়েছে। যেখানে পৃথিবীর বড় বড় ষড়যন্ত্র, হ্যাকিং ইত্যাদির উপর দুর্লভ এবং উঁচু মানের বই পাওয়া যায়। এমন কি যে কোন বই বাজারে প্রকাশের আগেই তা এই ক্লাব মেম্বারদের হাতে চলে আসে।

২০১১ সালে সর্ব প্রথম এই ওয়েবসাইটটি সম্পর্কে জানা যায়। তার আগ পর্যন্ত এটা সম্পর্কে কিছু জানা যায় নি। এই ওয়েবসাইটটির প্রতিষ্ঠাতা ‘ড্রেড পাইরেট রবার্ট’ নামে একজন সাইটটি পরিচালনা করত। ২০১৩ সালে এফ বি আই ওয়েবসাইট টি বন্ধ করে দেয়। এর পিছনে আছে এক মজার ঘটনা। সিল্ক রোড ওয়েবসাইটটি অল্প সময়ের মধ্যেই মাদকসেবীদের মধ্যে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায়। অনেক ডকুমেন্ট, নেটওয়ার্ক ট্রেস করে গোয়েন্দারা রোস আলব্রিচ নামের এক ব্যক্তিকে সন্দেহ করে । ধারনা করে এই ব্যক্তিটিই আসলে সাইটটির প্রতিষ্ঠাতা, যে ড্রেড পাইরেট রবার্ট ছদ্মনামে ওয়েবসাইট টি পরিচালনা করত। কিন্তু গোয়েন্দাদের কাছে শক্ত কোন প্রমাণ ছিল না। শোনা যায় এবার এটির নাম silk road 3.1 । এই কুখ্যাত ওয়েবসাইটটি এখন আরও শক্তিশালী নেটওয়ার্ক এবং সিকিউরিটি ব্যবহার করছে এবং মহা পরিক্রমায় ডার্ক নেটে বিস্তার করে আছে মাদকের এক বিরাট রাজ্য ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

10 + 19 =