Templates by BIGtheme NET
৫ কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ২০ অক্টোবর, ২০১৯ ইং , ১৯ সফর, ১৪৪১ হিজরী
Home » জাতীয় » রিকশার কারণে গিনেজ বুকে নাম উঠেছিলো বাংলাদেশের

রিকশার কারণে গিনেজ বুকে নাম উঠেছিলো বাংলাদেশের

প্রকাশের সময়: জুলাই ৮, ২০১৯, ১:৪০ অপরাহ্ণ

পৃথিবীর সব আবিস্কারের পেছনেই থাকে মজার কিছু ইতিহাস। কিছু আবিস্কার হারিয়ে যায় কালের গর্ভে আর কিছু আবিস্কার যুগ যুগ ধরে বংশ বিস্তার করে চলে । তেমনই একটি আবিস্কার হলো রিকশা। যার ইতিহাস প্রাচীন কিন্তু এখনও আমাদের রাজপথ দাপিয়ে বেড়াচ্ছে।

বলা হয় আধুনিক রিকশার পিতা হলো সাইকেল। যেই সাইকেলের আবিস্কারক ছিলেন একজন চোর। অর্থাৎ তার পেশা ছিলো চুরি করা। হয়তো চুরির সুবিধার জন্যই সাইকেলে আবিস্কার করেছিলেন। তবে এর পক্ষে তেমন প্রমাণ পাওয়া যায় না। তবে ১৮৬৬ সালের ২০ নভেম্বর পিয়ের লালেমেন্ট সাইকেল উদ্ভাবন করেছিলেন।

এই সাইকেলের পরবর্তী ধাপ হলো রিকশা। ১৮৬৯ সালে জাপানে এর বিস্তার হয়েছিলো । ২য় বিশ্বযুদ্ধের সময় জ্বালানি সংকটের কারণে জাপানে রিকশার প্রচলন ব্যাপক বেড়ে যায়।

রিকশা শব্দটিও এসেছে জাপানি ‘জিনরিকশা’ শব্দটি থেকে। চীনা ভাষায় জিন শব্দের অর্থ করলে দাঁড়ায় মানুষ, রিকি শব্দটির অর্থ হলো শক্তি; আর ‘শা’ শব্দটির মানে বাহন। অর্থগুলো এক করলে দাঁড়ায় মানুষের শক্তিতে চালিত বাহন।

জাপানে প্রাচীনকালে রিকশা ছিলো দুই চাকার। সামনের দিকে চাকার বদলে একজন মানুষ এটা টেনে নিয়ে যেত। এ ধরনের রিকশাকে বলা হয় ‘হাতেটানা রিকশা’। সেই রিকশার বংশধররা এখন কলকাতায় চলাচল করছে। ২০০৫ সালে পচিমবঙ্গ সরকার হাতে টানা রিকশাকে অমানবিক বলে তা নিষিদ্ধের প্রস্তাব করে।

অন্যদিকে বাংলাদেশের রিকশা বেশ আধুনিক অর্থাৎ প্যাডেল চালিত। ধারণা করা হয়, বাংলাদেশের চট্টগ্রামে ১৯১৯ কিংবা ১৯২০ সালের দিকে। ঢাকাতে প্রথম রিকশার লাইসেন্স দেয়া হয় ১৯৪৪ সালে। গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসের তথ্য অনুসারে, ঢাকায় কমপক্ষে ৫ লক্ষাধিক রিকশা চলাচল করে এবং ঢাকার ৪০ শতাংশ মানুষই রিকশায় চলাচল করে। ২০১৫ সালে এটিকে বিশ্ব রেকর্ড হিসেবে তাদের বইয়ে স্থান দেয়।

রিকশার আরেকটি মজার জিনিস হলো তার পেইন্টিং। যার কারণে রিকশা বরাবরই বিদেশীদের নজর কেড়েছে। ২০১১ সালে বাংলাদেশে ক্রিকেট বিশ্বকাপের উদ্বোধনের সময় প্রতিটি দলের অধিনায়করা রিকশায় করে মাঠে উপস্থিত হন। বিষয়টি বেশ প্রশংসিত হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

three × three =