Templates by BIGtheme NET
৫ শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ২০ জুলাই, ২০১৯ ইং , ১৬ জিলক্বদ, ১৪৪০ হিজরী
Home » মতামত » “ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্য তালিকা থেকে বাদ পড়ছে সুন্দরবন!

“ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্য তালিকা থেকে বাদ পড়ছে সুন্দরবন!

প্রকাশের সময়: জুন ৩০, ২০১৯, ৩:০৮ অপরাহ্ণ

কামরুল হাসান মামুন: ইউনেস্কো ২০১৯ সালে নতুন যেইসব স্থান বা প্রতিষ্ঠান বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকায় আসবে মনোনীত করেছে তাদের নাম ঘোষণা করলো! আর একই সাথে বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকায় থাকা কয়েকটি বিপদাপন্ন জায়গার নাম চিহ্নিত হরেছে। এর মধ্যে প্রথমেই আছে আমাদের বাংলাদেশের সুন্দরবন। এ কারণে বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকা থেকে বিশ্বের সর্ববৃহৎ ম্যানগ্রোভ বন বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকা থেকে বাদ পড়ার আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। মারহাবা! মারহাবা!! মারহাবা!!!

আমার মনে হচ্ছে খুব পরিকল্পনা করে আমাদের গর্ব বিশ্বের সর্ববৃহৎ ম্যানগ্রোভ বন সুন্দরবনকে মেরে ফেলা হচ্ছে। নাহলে কেন এর পাশেই কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্প তৈরী করতে হবে? কেন এর চারপাশে ৫ সিমেন্ট কারখানা করার ছাড়পত্র দেওয়া হবে? ইতিমধ্যেই এর চারপাশে আরো অনেক শিল্প কারখানা করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে! জার্মানি ২০১৯ সালে ঘোষণা দেয় যে তাদের যে ৮৪টি কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্প আছে তার সবগুলোকেই বন্ধ করে দেওয়া হবে। ওগুলো কিন্তু এইরকম বিশ্ব ঐতিহ্যের পাশে নয় কিন্তু তারপরও বন্ধ করে দিচ্ছে কারণ এইগুলো পরিবেশের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। আর আমাদেরটাতো সুন্দরবনের পাশে। কেমনে পারি?

একটি সুন্দরবন কি ইচ্ছে করলেই সৃষ্টি করা যাবে? যেই ক্ষতি irreversible সেটার রিস্ক একটি সভ্য দেশ কিভাবে নিতে পারে? জার্মানি আমাদের মত ঘনবসতিপূর্ন নয়। তাদের জায়গারও অভাব নেই তারপরও নতুন করে কোন কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্রতো বানাচ্ছেই না উল্টো যেগুলো আছে সেগুলোকেও বন্ধ করে দিচ্ছে। কি পরিমান ক্ষতিকর বলে এইরকম সিদ্ধান্ত তারা নিচ্ছে?

শুধুই কি তা? ২০১১ সালে জাপানের ফুকুশিমা নিউক্লিয়ার এক্সিডেন্ট হওয়ার পর জার্মানি তার মোট ১৭টি রিয়েক্টরের মধ্যে ৮টিই ইতিমধ্যে বন্ধ করে দিয়েছে এবং ঘোষণা করেছে বাকিগুলোকেও ক্রমান্বয়ে বন্ধ করে দেওয়া হবে। মানুষের জীবনের রিস্ক ও পরিবেশের রিস্ককে তারা কত গুরুত্ব দেয় ভাবা যায়? এটাই সভ্য জাতি হওয়ার লক্ষণ! আর আমরা যারা মানুষের জীবনের রিস্ককে কোন গুরুত্ব দেওয়ার সংস্কৃতিই নেই তারা এখন পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প করছি তাও আবার অন্যের কাছ থেকে ঋণের টাকায়, অন্যের কারিগরি উপদেশে। Unbelievable!

Yes, আমাদের বিদ্যুৎ প্রয়োজন। Yes উন্নয়নের জন্য এর বিকল্প নেই। কিন্তু কিসের বিনিময়ে? এই প্রশ্নের উত্তর জানার জন্য এনাফ গবেষণা করে তারপর কি আমরা সিদ্ধান্তগুলো নিচ্ছি? সুন্দরবনের মত একটি অতুলনীয় অভাবনীয় সম্পদ আজ ধ্বংসের পথে। তারপরও সরকারি দল করে এমন কোন বুদ্ধিজীবীকে এ নিয়ে কথা বলতে দেখিনা। এটা বড়ই পীড়াদায়ক। অথচ উনারা বললে বরং কাজ হতো বেশি। তারা দল এবং নিজের লাভকে দেশের উপরে স্থান যে দেন এইসব তারই প্রমান।

অধ্যাপক, ঢাবি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

five × two =