Templates by BIGtheme NET
১০ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ২৪ মে, ২০১৯ ইং , ১৮ রমযান, ১৪৪০ হিজরী
Home » বিশেষ সংবাদ » বিএনপির সংরক্ষিত এমপি নিয়ে নতুন করে দ্বন্দ্ব

বিএনপির সংরক্ষিত এমপি নিয়ে নতুন করে দ্বন্দ্ব

প্রকাশের সময়: মে ১৫, ২০১৯, ১২:০৮ অপরাহ্ণ

নিউজ ডেস্ক::  বিএনপিতে এখন আলোচনার বিষয় বস্তু একটাই। কে হচ্ছে সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি? এই আলোচনায় মুখর দলটির নেতা-কর্মীরা। ইতোমধ্যে নারী আসনের এমপি হতে লবিং-তদবির ও দৌড়ঝাঁপ শুরু হয়েছে বিএনপিতে। রাজনৈতিক দক্ষতা ও যোগ্যতাকে মূল্যায়ন করা হলে মনোনয়ন পাবেন, এমন প্রত্যাশাও করছেন বেশ কয়েকজন নারী নেত্রী। দলের সিদ্ধান্তের জন্য অপেক্ষা করছেন বিএনপির আন্দোলন সংগ্রামে অগ্রভাগে থাকা নেত্রীরা।

জানা গেছে, দলের হাইকমান্ডের দেওয়া সর্বশেষ তালিকার শীর্ষে রয়েছেন বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সহ-সম্পাদক ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা ও নির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট নিপুণ রায় চৌধুরী। দলের যুগ্ম মহাসচিব হারুনুর রশীদ এমপির স্ত্রী দলের কেন্দ্রীয় নেতা এবং সাবেক এমপি সৈয়দা আশিফা আশরাফী পাপিয়াও রয়েছেন আলোচনায়। উক্ত আলোচনায় অংশ নেয়া স্থায়ী কমিটির এক সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

বিএনপির একজন এমপি জানান, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পছন্দের তালিকায় চারজন প্রার্থী রয়েছেন। যাদের মধ্যে আফরোজা আব্বাসও রয়েছেন। তবে আশিফা আশরাফী পাপিয়ার নাম এই তালিকায় নেই।

এদিকে সংসদে যোগ দেওয়া হারুনুর রশীদ চাইছেন তার স্ত্রী পাপিয়াকে সংরক্ষিত নারী আসনে এমপি করতে। এ ব্যাপারে তিনি দলের অন্য চারজন এমপিকেও অনুরোধ করেছেন। শীর্ষ নেতারা পাপিয়াকে সরাসরি নাকচ করে দিয়েছেন। আবার জিয়াউর রহমানের কনিষ্ঠ পুত্র প্রয়াত আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী শর্মিলা রহমান সিঁথির অনুসারীরা চাইছেন এ আসনে তার মনোনয়ন নিশ্চিত করতে। তবে দলের হাইকমান্ড স্পষ্ট জানিয়েছে, সংরক্ষিত আসনে জিয়া পরিবারের কাউকে নেওয়া হবে না।

অন্যদিকে নিপুণ রায় চৌধুরীও এসেছেন রাজনৈতিক ঐতিহ্যসম্পন্ন পরিবার থেকে। বিএনপির স্থায়ী কমিটির প্রভাবশালী সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের পুত্রবধূ নিপুণ রায় চৌধুরীর বাবা একই দলের ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট নিতাই রায় চৌধুরী। পারিবারিক ঐতিহ্য ও রাজনৈতিক ভূমিকার কারণে মহিলা দলের সভানেত্রী আফরোজা আব্বাসও সংরক্ষিত আসনের জন্য আলোচিত হচ্ছেন।

সংরক্ষিত এমপি হিসেবে আরও আলোচনায় রয়েছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ ও নির্বাহী কমিটির সদস্য জেবা খান।

সংবিধান অনুসারে, ৩০০ আসনের বিপরীতে ৫০টি সংরক্ষিত আসন বণ্টন করা হয়। এ ক্ষেত্রে একটি রাজনৈতিক দলের ছয়জন সংসদ সদস্যের বিপরীতে একজন নারী সদস্য নির্বাচিত করা হন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

eight + sixteen =