Templates by BIGtheme NET
১০ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ২৪ মে, ২০১৯ ইং , ১৮ রমযান, ১৪৪০ হিজরী
Home » বিশেষ সংবাদ » মনোকষ্টে কৃষক: বাম্পার ফলনেও উঠছে না উৎপাদন খরচ

মনোকষ্টে কৃষক: বাম্পার ফলনেও উঠছে না উৎপাদন খরচ

প্রকাশের সময়: মে ১৪, ২০১৯, ২:৩৬ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক: মণ প্রতি ধান কিনতে ৫০০ টাকা নির্ধারণ করেছে সরকার। ধান কাটতে মণ প্রতি দিনমজুরকে দিতে হচ্ছে প্রায় এক হাজার টাকা। এরপরও ধান ঘরে তুলতে আরও খরচ। অন্যদিকে বেশি মজুরি হলেও কামলা পাওয়া যায় না। ক্ষেতে ধান পাকলেও তা ঘরে তুলতে পারছি না। তাই এক দাগের ৫৬ শতাংশ ধানে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছি। ক্ষোভ প্রকাশ করে “বাংলাদেশের কথা”কে এমনটাই জানালেন টাঙ্গাইলের কৃষক আব্দুল মালেক সিকদার।

মালেক সিকদার অভিযোগ করেন, ধানের উৎপাদন খরচ উঠছে না। হাট-বাজারে চলছে বিশৃঙ্খলা। প্রতিকূল আবহাওয়া ও নানা সমস্যা সঙ্কটে রোদ-বৃষ্টি মাথায় নিয়ে আমরা কৃষকরা ধান উৎপাদন করে অনবরত মার খাচ্ছি। কেউ খোঁজও নিচ্ছে না। এ অভিযোগ শুধু আমার একার নয় সাধারণ কৃষকেরও।

বাড়ি তার টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার পাইকড়া ইউনিয়নে। ধানের ন্যায্য দাম না পাওয়ায় বোরবার নিজের রোপণকৃত পাকা ধানে আগুন লাগিয়ে দেন কৃষক মালেক শিকদার।

তিনি জানান, দিন প্রতি একজন দিনমজুরকে দিতে হয় ৯০০ থেকে ১ হাজার টাকা। আর বর্তমান বাজারে ধানের মূল্য ৫০০ টাকা মণ। এতে প্রায় দুই মণ ধান বিক্রি করে কৃষক একজন দিনমজুরকে মজুরি দিতে হচ্ছে।

টাঙ্গাইলের মালেক সিকদারের মত একই অভিযোগ করেছেন রাজবাড়ির মধুখালীর কৃষক রমজান আলী, সাতক্ষীরার কলারোয়ার কৃষক ইউসুফ আলী সরদার ঝিনাইদহের বারোবাজারের কৃষক সজীব হোসেন পলাশসহ বেশ কয়েকজন কৃষক।

কৃষকরা জানান, আমরা সাধারণত এক ফসলের টাকা দিয়ে পরবর্তী আবাদ করি। পর পর কয়েকটি আবাদে উৎপাদন খরচ না ওঠায় ধারদেনায় জর্জরিত। ধানের বাজারে কোন তদারকি নেই। আমরা দারুণ মনোকষ্টে দিন কাটাচ্ছি। তার ওপর বাজার ব্যবস্থাপনার দুর্বলতায় পাইকার, মজুদদার ও মধ্যস্বত্বভোগীদের টানাহেঁচড়া চলছে। ধানের বাজারে এখন একচেটিয়া নিয়ন্ত্রণ মুনাফালোভীদের।

যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের এ্যাগ্রো প্রোডাক্ট প্রসেসিং এন্ড টেকনোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ডক্টর মৃত্যুঞ্জয় বিশ্বাস জানান, কৃষক ধানের উপযুক্ত মূল্য না পাওয়ায় দিনে দিনে পিছিয়ে যাচ্ছেন, আর্থিকভাবে হচ্ছেন ক্ষতিগ্রস্ত। সেজন্য সুষ্ঠু বাজার ব্যবস্থাপনার বিকল্প নেই। কৃষকরা ধানের মূল্য পাচ্ছেন কী পাচ্ছেন না তা তদারকি করা হয় না। কৃষক যখন মাঠ থেকে ধান কর্তন শুরু হয় তখনই তাদের উপযুক্ত মূল্যপ্রাপ্তি নিশ্চিত করা দরকার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

10 − 5 =