Templates by BIGtheme NET
২ শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ১৭ জুলাই, ২০১৯ ইং , ১৩ জিলক্বদ, ১৪৪০ হিজরী
Home » মতামত » যে মানুষটি ক্ষমতার অনেক কাছে থেকেও তা থেকে মুক্ত রেখেছিলেন নিজেকে

যে মানুষটি ক্ষমতার অনেক কাছে থেকেও তা থেকে মুক্ত রেখেছিলেন নিজেকে

প্রকাশের সময়: মে ৯, ২০১৯, ১:০৩ অপরাহ্ণ

দেব জ্যোতি ভক্ত : 

ড :এম এ ওয়াজেদ মিয়া সম্পর্কে খুব বেশী কিছু জানি না। উনি এতোটাই নিভৃতচারী ও প্রচার বিমুখ ছিলেন যে, তাঁর সম্পর্কে খুব বেশী কিছু জানা সহজসাধ্য না। তবে যতোটুকু জানা সম্ভব হয়েছে তা অতি সামান্য হলেও গুরুত্বপূর্ণ। এই মানুষটা বঙ্গবন্ধু পরিবারের সকল সংকটে যতোটা পাশে ছিলেন, ঠিক ততোটা দূরে ছিলেন ক্ষমতা ও দাম্ভিকতা থেকে।

৬৬ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৬ দফা দাবি সর্বসাধারণের কাছে তুমুল জনপ্রিয়তা অর্জন করার পর, বঙ্গবন্ধু পরিবারের উপর নানা রকম নির্যাতন করা হয়। তৎকালীন গভর্নর মোনায়েন খান তো ঘোষণা করেন – “শেখ মুজিবের পরিবারের সাথে কেউ আত্মীয়তা করলে তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

এই ঘোষণার পর বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার সাথে বিয়ের কথাবার্তা চলতে থাকা দুটি পাত্র পক্ষ পিছিয়ে যায়। কিন্তু ওয়াজেদ মিয়ার কাছে প্রস্তাব দেওয়া হলে তিনি রাজি হয়ে যান। তবে তাঁর ভেতরে কিছুটা সংকোচ ছিলো, সংকোচের কারণ – তিনি শেখ মুজিবুর রহমানকে “মুজিব ভাই” বলে ডাকতেন।

৭৫ এ বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর দুই বঙ্গবন্ধু কন্যাকে প্রবাসে আগলে রেখেছিলেন ওয়াজেদ মিয়া। তখন বঙ্গবন্ধুর সাথে ঘনিষ্ঠ ছিলেন এমন অনেকেই শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানাকে এড়িয়ে গেছেন।

এক এগারোতে শেখ হাসিনাকে যখন গ্রেফতার করা হয়, যখন আওয়ামী লীগের অনেক বড় বড় নেতা সংস্কারপন্থী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন তখন ওয়াজেদ মিয়া সরকারের কাছে আবেদন করেছিলেন শেখ হাসিনাকে মুক্ত করার জন্য।

সম্ভবত তিনিই একমাত্র ব্যক্তি যিনি ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দুতে বারবার অবস্থান করেও বিন্দুমাত্র ক্ষমতার ব্যবহার করেন নাই, অপব্যবহার তো দূরের কথা। ১০ম মৃত্যুবার্ষিকীতে তাঁর প্রতি রইলো গভীর শ্রদ্ধাঞ্জলি।

ভালো থাকবেন হে বিজ্ঞানী; ভালোবাসা।

ফেসবুক থেকে নেয়া।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

one × four =